Home / রাজনীতি / নির্বাচন বাতিল না করা পর্যন্ত তিন পথে অবস্থান

নির্বাচন বাতিল না করা পর্যন্ত তিন পথে অবস্থান

১৮ দল ঘোষিত গণতন্ত্রের অভিযাত্রা বা ‘মার্চ ফর ডেমোক্রেসি’ কর্মসূচি আজ সোমবারও অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। গতকাল বিকাল ৪টার দিকে পুলিশি বাধায় নয়াপল্টনে আসতে না পেরে গুলশানে নিজের বাড়ির মূল ফটকের সামনে দাঁড়িয়ে বেগম খালেদা জিয়া সাংবাদিকদের সামনে এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন। এর পর সন্ধ্যা পৌনে ৭টায় জাতীয় প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে দলের ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজউদ্দিন বীরবিক্রম এই ‘মার্চ ফর ডেমোক্রেসি’ কর্মসূচি পুনঃ ঘোষণার পাশাপাশি আজ থেকে সারা দেশে জেলা-উপজেলা ও মহানগরী পর্যায়ে সড়ক, রেল ও নৌপথে অনির্দিষ্টকালের জন্য ১৮-দলীয় নেতা-কর্মীদের অবস্থান কর্মসূচি ঘোষণা করেন। তিনি বলেন, শুধু একতরফা নির্বাচন বন্ধ নয়, বর্তমান এই স্বৈরাচারী সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত দেশব্যাপী এই অবস্থান কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে। পরে সংবাদ সম্মেলন শেষে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে প্রধান ফটক থেকে মেজর (অব.) হাফিজউদ্দিন আহমেদকেও সাদা পুলিশ গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। সংবাদ সম্মেলনে মেজর (অব.) হাফিজউদ্দিন আহমেদ বলেন, দেশব্যাপী সরকার সব যোগাযোগের পথ বন্ধ করে দিয়ে এমনকি ন্যক্কারজনকভাবে বিরোধী দলের নেতা ও তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রীর বাড়ির সামনের রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে তাকে অবরুদ্ধ করে রেখে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন, খালেদা জিয়া নাকি কর্মসূচি পালনে ব্যর্থ হয়েছেন। তিনি নাকি নাটক করেছেন। তার পোশাক নিয়েও নেতিবাচক মন্তব্য করেছেন আশরাফ। কিন্তু আওয়ামী লীগের মতো দলের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আশরাফের মুখ থেকে আমরা এ ধরনের অশালীন বক্তব্য কখনোই আশা করিনি। মেজর (অব.) হাফিজ বলেন, এ সরকারের আয়ু শেষ হয়ে গেছে। পতনটুকু সময়ের ব্যাপার মাত্র। এ ছাড়াও তিনি ঢাকাসহ সারা দেশে যৌথ অভিযানের নামে বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের ধরে নিয়ে হত্যা, গুমসহ তাদের না পেয়ে অনেক নেতার বাড়ি থেকে তার স্ত্রী সন্তানদের- এমনকি দুধের শিশু পর্যন্তও ধরে নিয়ে যাচ্ছে। চালাচ্ছে অমানুষিক নির্যাতন। মেজর হাফিজ বলেন, এই জন্য কী আমরা ‘৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ করেছিলাম। বিএনপির এই ভাইস চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীদের নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর একজন উপদেষ্টার নেতৃত্বে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভেতরে হামলা চালানো, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ওপর হামলা চালানো, সর্বোপরি সর্বোচ্চ বিচারিক প্রতিষ্ঠান সুপ্রিমকোর্টে পুলিশের প্রটেকশনে সবচেয়ে ন্যক্কারজনক হামলার ঘটনায় তিনি তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ ও ঘৃণা প্রকাশের পাশাপাশি এসব হামলার সঙ্গে জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদানেরও দাবি জানান। এ ছাড়াও গতকালের কর্মসূচি চলাকালে চাঁদপুরের বিষ্ণুপুরের মানসুর প্রধানিয়া নামের একজন কর্মীর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ ও দোষীদের শাস্তি দাবি করেন মেজর (অব.) হাফিজ।

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ