Home / রাজনীতি / সঙ্কট নিরসনে তৃতীয় বৈঠকে অগ্রগতি নেই ক্ষুব্ধ বিএনপি

সঙ্কট নিরসনে তৃতীয় বৈঠকে অগ্রগতি নেই ক্ষুব্ধ বিএনপি

আসন্ন নির্বাচনকে ঘিরে চলমান সঙ্কট নিরসনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে গতকাল অনুষ্ঠিত তৃতীয় দফা আলোচনায় কোনো অগ্রগতি হয়নি। এতে ক্ষুব্ধ বিএনপি। বৈঠকে অংশ নেওয়া বিএনপির এক নেতা জানান, সরকার কোনো ছাড় দিতে রাজি নয়। এমনটা হলে সংলাপ সফল হবে না। তবে বিএনপি সংলাপ চালিয়ে যেতে চায়। কারণ তারা মনে করে দেশ ও জনগণের কথা চিন্তা করে শেষ পর্যন্ত সরকার ছাড় দিতে বাধ্য হবে। ওই নেতা জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার পদ ছাড়তে রাজি নন। এমনকি তার ক্ষমতা রহিত করার বিষয়েও কোনো ছাড় দিতে রাজি নন। আবার ছাড় না দিলেও বিএনপিকে হরতাল-অবরোধ থেকে সরে আসার তাগিদ জানানো হয়েছে বৈঠকে। তবে বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে-আন্দোলন ও সংলাপ চলছে, চলতে থাকবে। যে মুহূর্তে দাবি মানা হবে সে মুহূর্তেই কর্মসূচি প্রত্যাহার করা হবে। গতকাল ঢাকায় গুলশানে জাতিসংঘের আবাসিক প্রতিনিধি নেইল ওয়াকারের বাসভবনে তৃতীয় দফা বৈঠকে বসেন আওয়ামী লীগ ও বিএনপি নেতারা।
জানা গেছে, সংলাপের পরিবেশ সৃষ্টির অংশ হিসেবে বিএনপির পক্ষ থেকে একতরফা নির্বাচনী তফসিল বাতিল, কারাবন্দি শীর্ষ নেতাদের নামে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও নেতাদের মুক্তি, নিখোঁজ নেতাকর্মীদের সন্ধান এবং নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের প্রত্যাহার করার প্রস্তাব দেওয়া হয়।
ইতোমধ্যে বিএনপির পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে, সরকারের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে তাদের অন্তত ৩০ জন নেতাকর্মীকে গুম করেছে। সর্বশেষ গত ১১ ডিসেম্বর রাত পৌনে ২টায় মিরপুর ব্লক-এ, লাইন-৮, বাসা নং-১২ থেকে সূত্রাপুর থানা ছাত্রদল সভাপতি সেলিম রেজা পিন্টুকে গ্রেফতার করে ডিবি পুলিশ। গতকাল পর্যন্ত তার কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি।
দুই দলের নেতাদের বৈঠক শেষে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেন, আলোচনা হয়েছে। তারা কিছু প্রস্তাব দিয়েছেন। আমরাও আমাদের কথা বলেছি। এখন দলের ভেতরে আলোচনা করে আমরা সিদ্ধান্ত নেব। পরবর্তীতে প্রায় একই কথা বলেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
মির্জা ফখরুল বলেন, সব দলের অংশগ্রহণে একটি সুষ্ঠু, নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য আমরা বসেছি। তৃতীয় দিনের মতো এ আলোচনা হল। সুনির্দিষ্ট কিছু প্রস্তাব আমরা দিয়েছি। তারাও তাদের প্রস্তাব দিয়েছেন। এখন দলীয় ফোরামে বৈঠক করে আমরা সিদ্ধান্ত নেব। তবে কোন পক্ষ কী প্রস্তাব দিয়েছে-সে বিষয়ে তারা কেউ মুখ খোলেননি।
সৈয়দ আশরাফ ছাড়া আওয়ামী লীগের পক্ষে এ বৈঠকে ছিলেন উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ ও প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা গওহর রিজভী। বিএনপির প্রতিনিধি দলে মির্জা ফখরুল ছাড়া ছিলেন স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ড. আবদুল মঈন খান ও সহ-সভাপতি শমসের মবিন চৌধুরী।
গত বুধবার গুলশানের ওই বাড়িতেই সর্বশেষ বৈঠক করেন দুই দলের এ আট নেতা। সেদিন তাদের মধ্যস্থতায় ছিলেন জাতিসংঘের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকো। আরও ছিলেন জাতিসংঘের আবাসিক প্রতিনিধি নেইল ওয়াকার। ওই দিনই সংলাপ চালিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে ঢাকা ছাড়েন অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকো।

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ