Home / রাজনীতি / রওশনের নেতৃত্বে নির্বাচনে যাচ্ছে জাপা এরশাদের পরোক্ষ সমর্থন!

রওশনের নেতৃত্বে নির্বাচনে যাচ্ছে জাপা এরশাদের পরোক্ষ সমর্থন!

জাতীয় পার্টিকে ঘিরে নির্বাচনকেন্দ্রিক জটিলতার অবসান হতে যাচ্ছে। চরম নাটকীয়তায় ভরা এইচএম এরশাদের পরোক্ষ সম্মতিতে জাপার লাঙ্গল নৌকায় উঠছে। রওশন এরশাদের নেতৃত্বেই জাপা দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে। এবার ৬১টি আসনপ্রাপ্তির নিশ্চয়তার কারণে বিভ্রান্তির বেড়াজাল কাটিয়ে আজকালের মধ্যে নতুন করে ঘোষণা দেওয়া হবে। এর আগে একটি বিশেষ গোয়েন্দা সংস্থা প্রধানের সঙ্গে আসন নিয়ে দরকষাকষির পর গতকাল আওয়ামী লীগ নেতা ও পূর্তমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এবং প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা গওহর রিজভী রওশন এরশাদের সঙ্গে তার গুলশানের বাসায় আলাদা বৈঠক করেছেন। এরই
মধ্যে ঢাকা-৪ আসন থেকে অ্যাডভোকেট সানজিদা খানম, চট্টগ্রামের নুরুল ইসলাম বিএসসিসহ দেশের বিভিন্ন নির্বাচনী এলাকা থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন। এছাড়া এরশাদ, জিএম কাদের, কাজী ফিরোজ রশীদসহ জাপার বেশ কয়েকজন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল না হয়ে বহাল রয়েছে।
জাপার একাধিক সূত্র জানায়, নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা বা না করা নিয়ে এরশাদ ও বেগম রওশন এরশাদের লড়াই আসলে পাতানো। তবে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে লড়াইয়ের শুরুতে জাপা ভাঙনের মুখে পড়ে। এই লড়াই শুধু জাতীয় পার্টি ভাঙনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল না। এর প্রভাব পড়ে এরশাদ ও বেগম রওশন এরশাদের সম্পর্কেও।
এক পর্যায়ে ক্ষুব্ধ হয়ে বেগম রওশন এরশাদকে পার্টি থেকে বহিষ্কার এবং তাদের সম্পর্কের ইতি টানারও হুঙ্কার দেওয়া হয়। সে যাই হোক না কেন, সুনির্দিষ্ট কয়েকটি কারণে এরশাদ তার রাজনৈতিক অবস্থান পাল্টাতে বাধ্য হচ্ছেন বলে জানা গেছে। শেষ পর্যন্ত চিকিত্সার জন্য এরশাদকে বিদেশে পাঠানো হতে পারে।
এদিকে জাতীয় পার্টির মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার গতকাল দুপুরে এক প্রেসব্রিফিংয়ে বলেছেন, এরশাদকে চিকিত্সা দেওয়ার জন্য সামরিক হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। তিনি সুস্থ হয়ে ফিরে আসবেন। তিনি সাংবাদিকদের জানান, এরশাদ নিজে তাকে জানিয়েছেন, তিনি আগামীকাল ফিরে আসবেন। এরশাদ অসুস্থ কি না সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, স্যারকে দেখে আমার প্রতীয়মান হয়নি তিনি অসুস্থ। তবে তাকে আটক করা হয়েছে কি না সে ধরনের কোনো তথ্য তার কাছে নেই বলেন জানান। এরশাদের অনুপস্থিতিতে অন্য কাউকে দলের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেওয়া হবে কি না এর জবাবে তিনি বলেন, আমরা এ বিষয়টি নিয়ে চেয়ারম্যানের সঙ্গে কথা বলেছি। তিনি বলেছেন, আমি দলের চেয়ারম্যান আছি, থাকব।
এর আগে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের প্রেস অ্যান্ড পলিটিক্যাল সেক্রেটারি সুনীল শুভ রায় জানান, এরশাদের কোনো অসুস্থতা ছিল না। কেন তাকে হাসপাতালে নেওয়া হল সেটি পরিষ্কার নয়। তাকে হাসপাতালে নেওয়ার কিছুক্ষণ আগেও তার সঙ্গে আমার কথা হয়।
অন্যদিকে জাপা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের বিশেষ উপদেষ্টা ববি হাজ্জাজ সকালের খবরকে ফোনে জানান, এক বিশেষ বার্তায় জতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদ তাকে জানিয়েছেন তিনি (এরশাদ) অসুস্থ নন। এরশাদকে গ্রেফতারের জন্য সামরিক হাসপাতালে আটকে রাখা হয়েছে। বিশেষ বার্তায় এরশাদ জাতীয় পার্টির সব নেতাকর্মীকে ধৈর্য ধরে এবং ঐক্যবদ্ধ থাকার নির্দেশ দিয়েছেন।
এরশাদ বলেন, পার্টির মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার ও আমার ভাই পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য জিএম কাদের আমার কাছ থেকে প্রাপ্ত দিকনির্দেশনা দলীয় নেতাকর্মীদের কাছে পৌঁছে দেবেন। আর ববির মাধ্যমে গণমাধ্যমকে আমার বক্তব্য জনাব। অন্য কারও বক্তব্য-বিবৃতি এবং প্রচারণায় আপনারা বিভ্রান্ত হবেন না। এরশাদ বলেন, সব দলের অংশগ্রহণ ছাড়া জাতীয় পার্টি কোনো নির্বাচনে অংশ নেবে না।

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ