Home / রাজনীতি / ফের শুরু হয়েছে সাঈদীর মামলার আপিল শুনানি

ফের শুরু হয়েছে সাঈদীর মামলার আপিল শুনানি

Sayede2প্রায় পঞ্চাশ দিন ফের শুরু হয়েছে জামায়াতের নায়েবে আমির দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীকে মৃত্যুদণ্ড দিয়ে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ এর রায়ের বিরুদ্ধে করা আপিল আবেদনের শুনানি। সোমবার শুনানির ১৯তম দিনেও সাঈদীর পক্ষে আপিল শুনানি করছেন অ্যাডভোকেট এএসএম শাহজাহান। তিনি সাঈদীর বিরুদ্ধে ট্রাইব্যুনালে দেওয়া ২৮তম সাক্ষী তদন্ত কর্মকর্তার জেরা উপস্থাপন করছেন।

এর আগে সর্বশেষ গত বছরের ২৫ নভেম্বর শুনানি হয়েছিলো। পরে হরতাল-অবরোধের কারণে আর শুনানি হয়নি। গত বছরের ২৪ থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ট্রাইব্যুনালের ১২০ পৃষ্ঠা রায় পড়ে শোনান ট্রাইব্যুনালে সাঈদীর প্রধান আইনজীবী ব্যারিস্টার আবদুর রাজ্জাক ও অ্যাডভোকেট এএসএম শাহজাহান। রায় পড়া শেষে সাক্ষ্য উপস্থাপন শুরু করা হয়। রাষ্ট্রপক্ষে আদালতে উপস্থিত রয়েছেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল এম কে রহমান।

প্রধান বিচারপতি মো. মোজ্জাম্মেল হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের ৫ সদস্যের বেঞ্চে এ শুনানি চলছে। অন্য ৪ বিচারপতি হচ্ছেন, বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা,বিচারপতি আব্দুল ওয়াহহাব মিঞা, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ও বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী।

মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে গত বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি সাঈদীকে মৃত্যুদণ্ড দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১। এ রায়ের বিরুদ্ধে ২৮ মার্চ সাঈদী ও সরকারপক্ষ পৃথক দুটি আপিল (আপিল নম্বর: ৩৯ ও ৪০) দাখিল করেন। গত বছরের ৩ এপ্রিল আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় আপিল আবেদনের সার-সংক্ষেপ জমা দেন সরকারপক্ষ। ১৬ এপ্রিল সার-সংক্ষেপ জমা দেন আসামিপক্ষ।

১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় গণহত্যা, হত্যা, ধর্ষণের আটটি অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় দুটি অপরাধে সাঈদীর বিরুদ্ধে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেন ট্রাইব্যুনাল। সাঈদীর বিরুদ্ধে গঠন করা অভিযোগে একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে তিন হাজারেরও বেশি নিরস্ত্র ব্যক্তিকে হত্যা বা হত্যায় সহযোগিতা, নয়জনেরও বেশি নারীকে ধর্ষণ, বিভিন্ন বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে লুটপাট, ভাঙচুর এবং ১শ থেকে ১শ ৫০ জন হিন্দু ধর্মাবলম্বীকে জোরপূর্বক ধর্মান্তরে বাধ্য করার মত ২০টি ঘটনার অভিযোগ আনা হয়েছিলো। এগুলোর মধ্যে সন্দেহাতীতভাবে ৮টি অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় সাঈদীকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেন ট্রাইব্যুনাল-১। এর মধ্যে দুটি অভিযোগে অর্থাৎ ৮ ও ১০ নং অপরাধে সাঈদীর মৃত্যুদণ্ড হয়েছে। এছাড়া ৬, ৭, ১১, ১৪, ১৬ ও ১৯নং অভিযোগ প্রমাণিত হলেও এগুলোতে কোনো সাজার কথা ঘোষণা করেননি ট্রাইব্যুনাল।

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ