Home / জাতীয় / ‘৭৯ নম্বর সড়কের দিকে তাকালেই বুঝা যায় বাংলাদেশের গণতন্ত্রের কি হাল’
‘৭৯ নম্বর সড়কের দিকে তাকালেই বুঝা যায় বাংলাদেশের গণতন্ত্রের কি হাল’

‘৭৯ নম্বর সড়কের দিকে তাকালেই বুঝা যায় বাংলাদেশের গণতন্ত্রের কি হাল’

রাজধানীর গুলশানের কূটনৈতিক জোনের ৭৯ নম্বর সড়কের দিকে তাকালেই বুঝা যায় বাংলাদেশের গণতন্ত্রের কি হাল। এই সড়কের একটি বাড়ির দুটি পথই বালু বোঝাই পাঁচটি লরি ও অসংখ্য পুলিশ দিয়ে অবরুদ্ধ । তৃতীয় সাইটটি রুশ দূতাবাসের বিশাল দেয়াল দিয়ে ঘেরা। বাংলাদেশের বিরোধীদলীয় নেতা বেগম খালেদা জিয়া এই বাড়িতেই গৃহবন্দি অবস্থায় বসবাস করছেন। তার অনুসারি যারাই তার বাসভবনে ভিতরে ঢোকার চেষ্টা করছেন তাদেরকেই গ্রেপ্তার করা হচ্ছে । শুক্রবার ‘দ্য মাইনাস ওয়ান সলিউশন’ শিরোনামে প্রভাবশালী আন্তর্জাতিক ম্যাগাজিন ইকোনমিস্টের এক প্রতিবেদনে এভাবেই বাংলাদেশের সর্বশেষ রাজনৈতিক অবস্থা তুলে ধরা হয়েছে।
প্রতিবেদনটিতে আরো বলা হয়েছে, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আরেক দফা শপথ গ্রহণের আগ পর্যন্ত খালেদা জিয়াকে গৃহবন্দি করে রাখার সম্ভাবনা রয়েছে বলে মনে হচ্ছে। আসন্ন সাধারণ নির্বাচন শুধুই নিয়ম রক্ষার নির্বাচন। ৫ জানুয়ারি এ নির্বাচন অনুষ্ঠান হওয়ার কথা। কিন্তু এর ফলাফল কয়েক সপ্তাহ আগে থেকেই সবার জানা। খালেদা জিয়ার বিএনপি এবং তাদের অপর ১৭টি জোটভুক্ত দল নির্বাচন বর্জন করছে। আর নির্বাচন বর্জনে সুর মেলানোর জন্য সরকার জাতীয় পার্টির প্রধান এবং সাবেক স্বৈরশাসক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে হাসপাতালে আটক করে রেখেছে। এরপর সব থেকে সংখ্যাগরিষ্ঠ হলো জামায়াতে ইসলামী যাদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা থেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। সংসদের ৩০০ আসনের মধ্যে ১৫৩টি আসনে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে না। ৯ কোটি ২০ লাখ যোগ্য ভোটারদের মধ্যে ৪ কোটি ৮৩ লাখ মানুষের ভোট দেয়ার প্রয়োজন হবে না। যারা ভোট দিতে পারছেন তারা ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী এবং তাদের সমর্থনপুষ্ট প্রার্থীদের মধ্যে তাদের পছন্দের প্রার্থীকে বেছে নিতে পারবেন। খালেদা জিয়া ২৯শে ডিসেম্বর গণ-সমাবেশের ডাক দিয়েছিলেন। ঢাকায় প্রবেশপথগুলো বন্ধ করে আর এক হাজারেরও বেশি বিরোধীদলীয় সমর্থক-কর্মীকে আটকে করে পুলিশ তা বানচাল করে দেয়। কর্মসূচির দিন যেখানে সমাবেশ হওয়ার কথা ছিল, বিএনপির প্রধান কার্যালয়ের সামনে সংবাদকর্মীরা শুধু সতীর্থ সংবাদকর্মীদের ক্যামেরাবন্দি করার সুযোগ পেয়েছেন।
এতে আরো বলা হয়, ২০১১ সালে আওয়ামী লীগ সংবিধান সংশোধন করে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল করে। অথচ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে ১৯৯৬-এর ১৫ই ফেব্রুয়ারির নির্বাচন বর্জন করেছিল আওয়ামী লীগ। এরপরই তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রথা প্রণয়ন করা হয়। তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রথা দূর করে ২০১৪ সালের নির্বাচন অনুষ্ঠান করাটা আওয়ামী লীগের দৃষ্টিভঙ্গি থেকে কার্যকর হলেও সামপ্রতিক এক জরিপে দেখা গেছে প্রায় ৫ জনের মধ্যে ৪ জন বাংলাদেশীর অবস্থান এর বিপক্ষে। এখন বিএনপির অবস্থা একেবারেই এলোমেলো। শেখ হাসিনা আর আওয়ামী লীগ তাদের নিজেদের পতন নিজেরাই ডেকে নিয়ে আনবে তার জন্য অপেক্ষা করা ছাড়া আর কিছু করণীয় নেই তাদের। গত কয়েক মাসে বিএনপি তাদের অবরোধ কর্মসূচি জোরদার করে। সপ্তাহে মাত্র একদিন বাদ রেখে বাকি সবদিন অবরোধ পালন করেছে তারা। তাদের পাশাপাশি জামায়াতে ইসলামীর সহিংসতায় নিহত হয় সাধারণ মানুষ। এদিকে নির্বাচন কমিশনের প্রকাশিত সম্পদের হিসাব থেকে দেখা যায়, ২০০৮ সাল থেকে হাসিনার ভ্রাতুষ্পুত্রদের সম্পদ বেড়েছে ৩৩০ গুণ। কয়েকজন ধারণা করছেন একছত্র শাসক হিসেবে হাসিনা এক বছরের বেশি টিকতে পারবেন না। তারই একজন উপদেষ্টার মতে এটা স্বল্পব্যাপী হবে। একইসঙ্গে তিনি এ-ও যোগ করেন, সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচনের দিকে এগিয়ে যাওয়া ছাড়া সরকারের অন্য কোন উপায় নেই। ঢাকায় এখন ইতিমধ্যে বিতর্কের বিষয়ে পরিণত হয়েছে যে, পরবর্তী আওয়ামী লীগ সরকারের পতন কিভাবে হবে। আওয়ামী লীগের একজন সিনিয়র নেতা স্বীকার করলেন, আরেকটি নির্বাচন অনুষ্ঠানের প্রয়োজন হবে যেখানে জয়ী হবে বিএনপি।

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ