Home / অর্থনীতি ও বানিজ্য / ট্রেন একই, কিন্তু যাত্রার সময় ভিন্ন!

ট্রেন একই, কিন্তু যাত্রার সময় ভিন্ন!

ভয়াবহ শিডিউল বিপর্যয়ের শিকার বাংলাদেশ রেলওয়ে। আর একারণে যাত্রীদের টিকিট ফেরতের সুবিধার্থে তারা শুরু করেছে এক অভিনব পদ্ধতি। রেলওয়ের নির্ধারিত সময় বাদ দিয়ে টিকিটে লিখে দেওয়া হচ্ছে ট্রেন ছাড়ার সম্ভাব্য সময়। ফলে একেক যাত্রীর টিকিটে দেখা যায় ট্রেন ছাড়ার একেক সময়।

শুক্রবার সকালে কমলাপুর রেলস্টেশনে গিয়ে দেখা যায় অপেক্ষমাণ যাত্রীর উপচে পড়া ভিড়। কথা বলতে গিয়ে পাশাপশি বসে থাকা দিনাজপুরগামী আন্তঃনগর একতা এক্সপ্রেস ট্রেনের যাত্রী রাজু ও মোতালেব হোসেনের টিকিটে দেখা গেল ঢাকা থেকে ট্রেনটির ছাড়ার সময় একজনের টিকিটে লেখা সকাল ১০টা, অপরজনেরটায় দুপুর ১২টা। সাথে সাথে সৃষ্টি হল বিভ্রান্তির।

এবিষয়ে কথা বলতে গেলে স্টেশন মাস্টার খায়রুল বশীর জানান, ট্রেনের শিডিউল মারাত্মকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ায় আমরা এ পদ্ধতি অবলম্বন করেছি। টিকিট কাটার পর একটা নির্দিষ্ট সময়ের ওপর নির্ভর করে আমরা সার্ভিস চার্জ কেটে মূল্য ফেরত দেই। সময় যত গড়ায়, টিকিটের মূল্য তত কেটে নেওয়া হয়। যাত্রীরা যাতে তাদের টাকা অধিক পরিমাণে ফেরত পেতে পারেন, সেজন্যই এই ব্যবস্থা নিয়েছি আমরা।

এদিকে ট্রেনের অপেক্ষায় থাকা আবু তাহের জানান, তিনি আন্তঃনগর ধূমকেতু এক্সপ্রেসে রাজশাহী যাবেন। ট্রেন ছাড়ার কথা ছিল সকাল ৭টায়। কিন্তু বেলা ১২টা বেজে গেলেও ট্রেনের কোনো খোঁজ নেই। কখন আসবে, তাও বলা যাচ্ছে না। একই রকম কথা বললেন দিনাজপুরের যাত্রী রেজাউল করীম জানান, আন্তঃনগর একতা এক্সপ্রেস ছাড়ার কথা সকাল ৯টার দিকে। কিন্তু কোনো খোঁজ নেই।

DSC00077_0শুক্রবার সকালে কমলাপুর স্টেশন

এ বিষয়ে স্টেশন মাষ্টার জানান, স্বাভাবিকভাবেই আমাদের সম্পদ সীমিত। এর মাঝে গত অবরোধগুলোয় বেশ কিছু ট্রেন দূর্ঘটনার শিকার হয়েছে। ফলে এখন আমরা সংকটে পড়েছি।

তিনি বলেন, নতুন করে দূর্ঘটনা এড়াতে আমরা ট্রেনের গতি কমিয়ে ৩০ কিলোমিটারের মধ্যে রেখেছি, যাতে ড্রাইভার দেখেশুনে চালাতে পারেন। এছাড়া কোনো লাইনে ট্রেন যাওয়ার আগে প্রতিবার আমরা ট্রলি দিয়ে পরীক্ষা কর নিচ্ছি যাতে কোনো দূর্ঘটনা না ঘটে। দেশের সম্পদ এবং মানুষের জানমাল বাঁচাতে গিয়েই আমরা প্রচন্ড শিডিউল বিপর্যয়ের মুখে পড়েছি।

নিরাপত্তার বিষয়ে তিনি বলেন, রেলের সম্পদ রক্ষার্থে আমরা নিরাপত্তা ব্যবস্থা বাড়িয়েছি। আনসারের সদস্যও মাঠে নামান হয়েছে, যাতে কেউ ফাঁক গলে কোনো নাশকতা চালাতে না পারে। আর তাছাড়া জনগণও এখন আমাদের সহায়তা করছে।

 

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ