Home / লাইফস্টাইল / ছাত্র-ছাত্রীদের যে ৯টি ভয়ানক বিষয় স্কুলে শেখানো হয়!

ছাত্র-ছাত্রীদের যে ৯টি ভয়ানক বিষয় স্কুলে শেখানো হয়!

আমেরিকা থেকে প্রকাশিত ফোর্বস ম্যাগাজিনে Nine Dangerous Things You Were Taught In School শিরোনামে জেসিকা হেজি নামে এক লেখিকা একটি লেখা লিখেছেন। তাতে তিনি স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের যে ৯টি ভয়ানক বিষয় শেখানো হয় তা নিয়ে লিখেছেন বা মতামত প্রকাশ করেছেন।

এই বিষয়গুলোকে ভয়ানক হিসেবেই তিনি বিবেচনা করেছেন। তবে এই বিষয়গুলোকে ভুল ধারণা বা বিষয় বলাও যেতে পারে। অন্তর্নিহিত ভাবটি বজায় রেখে সেই তালিকা অনুবাদ করে নিচে প্রকাশ করছি।

কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষা দেয়া ভয়ানক বিষয়গুলোর তালিকা-

শিক্ষক সব জানেন
কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রীরা যখন স্কুলে যান তখন তাদের মনে এই ধারণাই শিক্ষা দেয়া হয় বা তারা এ শিক্ষাই লাভ করেন যে, শিক্ষক সব জানেন, তিনি কোনো ভুল করেন না। এতে অনেক সময় শিক্ষক ভুল কিছু শেখালে তার সংশোধন করা যায় না সহজে।

ক্লাশরুমেই আসল শিক্ষা দেয়া হয়
শিশুরা বা ছাত্র-ছাত্রীদের এটাই বোঝানো হয় যে, ক্লাশরুমে যা পড়ানো হয় তাই হচ্ছে আসল শিক্ষা। বাকি ক্লাশরুম বহির্ভূত যে শিক্ষা যেমন- খেলাধুলা করা, বন্ধুদের সাথে মেলামেশা করা, ঘুরতে যাওয়া, আপন মনে ছবি আঁকা বা কোনো ফুল প্রজাপতি ব্যাঙ ধরা ইত্যাদি শিক্ষার অন্তর্ভূক্ত নয়।

সবচেয়ে ভালো হতে হলে নিয়ম পালন করতে হবে, কথা শুনতে হবে
সবচেয়ে ভালো যারা এবং যাদের ভবিষ্যত উজ্জ্বল তারাই নিয়ম পালন করে। এতে অধস্তন হয়ে থাকার প্রবণতা বাড়ে।

বইয়ে যা লেখা রয়েছে তা-ই সত্য
বইয়ে যা লেখা রয়েছে তা-ই সত্য। ছাত্র ছাত্রীরা ছোটোকাল থেকে এই ধারণাই অর্জন করে যে বইয়ে যা লেখ রয়েছে তা-ই সত্য। এতে তার নিজের মেধার বা সৃজনশীলতা বিকাশ বা প্রশ্ন করার স্বাভাবিক বিকাশ ক্ষীণ হতেও পারে।

ভালো নম্বর পাওয়া মানে ভালো ছাত্র হওয়া
ছাত্রদের শেখানো হয় পরীক্ষায় ভালো নম্বর পেলেই সেরা হওয়া যায়। ভালো নম্বর পাওয়া মানেই ভালো ছাত্র হওয়া। এতে ছাত্র ছাত্রীদের নম্বর পাওয়ার দিকেই মনোযোগ থাকে, লেখাপড়া করা বা আরো বেশি জানার দিকে মনোযোগ থাকে না।

নিয়ম পালন করতে হবে
ছাত্র-ছাত্রীদের স্কুলে নিয়মবিধি পালন করতে শেখানো হয়। ভালো ছাত্র হতে হলে তাকে ভালোভাবে নিয়ম পালন করতে হবে অর্থাৎ, তাকে স্কুলে ঠিকমত আসতে হবে, এসেমব্লি লাইনে ঠিকমত দাঁড়াতে হতে, সুবোধ হতে হবে ইত্যাদি। প্রশ্ন করা, নিজেকে চিন্তাকে প্রকাশ করা ইত্যাদির বিকাশ এতে রুদ্ধ হতেও পারে।

মূল্যায়নের মানদন্ড হচ্ছে মানসম্মত পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করা
ছাত্র ছাত্রীদের মূল্যায়ন করা হয় একটি মানসম্মত পরীক্ষার ভিত্তিতে। অন্য মূল্যায়নের মানদন্ড এতে বাদ পড়ে। অথচ সবাইকে একই ক্যাটগরিতে তো মাপা যায় না। কারো বিদ্যা বা শিক্ষার মূল্যায়ন হয়তো অন্য ক্যাটেগরিতেও মেপে তুলনা করতে হয়! অর্থাৎ, একই ছাঁচে ঢালা মূল্যায়নের কারণে ছাত্র-ছাত্রীদের বিদ্যা অর্জনের মান মূল্যায়ন অনেক সময় ভুলও হতে পারে বা সঠিক না-ও হতে পারে।

ক্লাশরুমে আনন্দ নেই
লেখাপড়া করতে শিশুরা এই ধারণাই বেশি অর্জন করে যে, ক্লাশরুমের শিক্ষায় আনন্দ নেই। বরং আনন্দ আছে ছুটি কাটানোতে। ক্লাশরুমের শিক্ষাকে আনন্দজনক মনে না করায় ছাত্রছাত্রীরা ক্লাশরুম লেখাপড়ায় মন দিতে পারে না।

ক্যারিয়ারই সব
শিক্ষার উদ্দেশ্য বা লক্ষ্য হচ্ছে ভবিষ্যতের জন্য ভালো ক্যারিয়ার গঠন করা। এতে ভালো শ্রমিক হতে শেখানো হয় মাত্র।

 

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ