Home / আইন / বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে শারীরিক সম্পর্ক ধর্ষণ নয় : আদালত
বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে শারীরিক সম্পর্ক ধর্ষণ নয় : আদালত

বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে শারীরিক সম্পর্ক ধর্ষণ নয় : আদালত

প্রাপ্তবয়স্ক, শিক্ষিত, সাবলম্বী কোনও মহিলা যদি বিবাহের প্রতিশ্রুতি পেয়ে কোনও বন্ধু বা সহকর্মীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হন, সেক্ষেত্রে দায়িত্ব তাঁর নিজের, বলল দিল্লির এক আদালত৷ আদালতের অভিমত, এ ক্ষেত্রে গোটা বিষয়টির পরিণতি কী হতে পারে সে সম্পর্কে মহিলার ধারণা থাকা উচিত৷ একটি বেসরকারি সংস্হার এক মহিলা কর্মী এক যুবকের বিরু‌দ্ধে বিবাহের প্রতিশ্রূতি দিয়ে সহবাসের অভিযোগ আনেন৷ সে বিষয়ে রায় দিতে গিয়েই আদালত এ কথা বলেছে৷ অভিযুক্তকে মুক্তিও দিয়েছে আদালত৷
অতিরিক্ত দায়রা বিচারক বীরেন্দ্র ভাট বলেছেন, একজন প্রাপ্তবয়স্ক, শিক্ষিত, কর্মরত মহিলা যদি বিবাহের প্রতিশ্রূতিতে কারও সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হন, তাহলে তা তিনি করছেন ‘নিজের দায়িত্বে’৷ বিচারক ভাট বলেছেন, “আমার মতে, দু’জন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ যদি বিবাহের প্রতিশ্রূতিতে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হন, সে ক্ষেত্রে সবসময় তা ধর্ষণ না-ও হতে পারে৷ যদি পরবর্তী সময়ে সেই পুরুষটি বিবাহের প্রতিশ্রূতি রক্ষা করতে না-ও পারেন, সেক্ষেত্রেও তা ধর্ষণ বলে গণ্য হওয়া উচিত হবে না৷ বিচারকের মতে, প্রাপ্তবয়স্ক, শিক্ষিত কোনও মহিলা যদি কোনও বন্ধু বা সহকর্মীর সঙ্গে সম্পর্কে লিপ্ত হন, তাঁর বোঝা উচিত তাঁর কাজের পরিণতি কী হতে পারে৷ তাঁর এটাও বোঝা উচিত যে তাঁর সঙ্গী পুরুষটি এই প্রতিশ্রূতি ভবিষ্যতে রক্ষা করতে পারেন, আবার না-ও করতে পারেন৷
এ বিষয়ে বিবাহপূর্ব শারীরিক সম্পর্ককে ‘অনৈতিক’ আখ্যা দিয়ে বিচারক বলেন, মহিলার বোঝা উচিত যে-সম্পর্কে তিনি জড়িত হয়ে পড়ছেন তা শুধুই যে অনৈতিক তা-ই নয়, প্রতিটি ধর্মের অনুশাসনের বিরু‌দ্ধে৷ পৃথিবীর কোনও ধর্মই বিবাহপূর্ব শারীরিক সম্পর্কে সম্মতি দেয় না৷ এর আগে সারা দেশে বিবাহের প্রতিশ্রূতি দিয়ে সহবাসের বহু অভিযোগ উঠেছে৷ সেই সব ঘটনায় অধিকাংশ অভিযোগেই পুরুষটির বিরু‌দ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের হয়েছে৷ তবে এই ঘটনায় অভিযুক্তকে মুক্তি দিয়েছে আদালত৷
২০১১ সালের মে মাসে পাঞ্জাবের বাসিন্দা এক যুবকের বিরু‌দ্ধে একটি বেসরকারি সংস্হায় কর্মরত এক মহিলা ধর্ষণের অভিযোগ আনেন৷ অভিযোগে মহিলা বলেন, ইণ্টারনেটের মাধ্যমে তাঁদের আলাপ এবং বিবাহের প্রতিশ্রূতি দিয়ে ওই যুবক একাধিকবার তাঁর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হন৷ পরে মহিলা অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে, তাঁকে গর্ভপাতের পরামর্শ দেন৷ অভিযোগে মহিলা জানিয়েছেন, ওই যুবক বলেছিলেন তাঁর বোনেদের বিয়ের আগে তিনি বিয়ে করতে পারবেন না৷ কিন্ত্ত বোনেদের বিয়ের পরেও তাঁকে বিয়ে করেননি ওই যুবক৷ এর মাসখানেক পর ওই যুবককে গ্রেফতার করা হয়৷ এই বিষয়েই রায় দিতে গিয়ে আদালত এই কথা বলেছে৷ ।

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ