Home / আন্তর্জাতিক / কেনিয়ার স্বাধীনতা দিবসে হামলা : নিহত ১৩

কেনিয়ার স্বাধীনতা দিবসে হামলা : নিহত ১৩

কেনিয়ায় সপ্তাহব্যাপী স্বাধীনতার অর্ধশত বার্ষিকী উদযাপনকালে চারটি পৃথক হামলায় ১৩ জন নিহত হয়েছে। বিদেশি পর্যটকদের ওপর প্রথম হামলাটি চালানো হয়। দুই বছরের মধ্যে দেশটিতে এটাই বিদেশি পর্যটকদের ওপর প্রথম হামলার ঘটনা। তবে কোনো ব্যক্তি বা সংগঠন এখন পর্যন্ত এই হামলার দায়িত্ব স্বীকার করেনি। এএফপি।
শনিবার নাইরোবির একটি বাসে সর্বশেষ হামলাটি চালানো হয়। বোমা হামলার এই ঘটনায় চারজন নিহত হয়েছে। এই ঘটনায় কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি। ২০১১ সালে সোমালিয়ার আল কায়দা সংশ্লিষ্ট শেবাব বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে সেনা পাঠানোর পর থেকেই কেনিয়ার ওপর বিশেষ করে পূর্বাঞ্চলে ব্যাপক জঙ্গি হামলা চালানো হয়েছে। দেশ দুটির মধ্যে ৭০০ কিলোমিটার (৪৫০ মাইল) সীমান্ত রয়েছে।
বিশেষজ্ঞরা শেবাবের সঙ্গে কেনিয়া সেনাদের সশস্ত্র সংঘর্ষের সঙ্গে সর্বশেষ এই ধারাবাহিক হামলার কোনো সংশ্লিষ্টতা খুঁজে পাননি। এক পশ্চিমা পর্যবেক্ষক এএফপিকে বলেন, এখন পর্যন্ত এই হামলার সঙ্গে জঙ্গি সংগঠন শেবাবের সংশ্লিষ্টতার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।
শুক্রবার রাতে সোমালি সীমান্ত থেকে প্রায় ১০০ কিলোমিটার দূরবর্তী শহর ওয়াজিরের একটি বাজারে জোড়া বোমা বিস্ফোরণে একজন নিহত ও অপর তিনজন আহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সোমালি সীমান্তে থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার দূরবর্তী গারিসা এলাকায় একটি গাড়িতে অতর্কিতে হামলা চালানো হলে পাঁচ পুলিশসহ আটজন নিহত হয়েছে। এই ঘটনার পর অপর এক পুলিশ নিখোঁজ রয়েছে।
শনিবার একটি বাসে বোমা হামলা চালানো হয়। শক্তিশালী এই বোমা হামলায় বাসটি শূন্যে উঠে যায়। ভয়াবহ এই হামলায় সম্পূর্ণভাবে পুড়ে গিয়ে শুধু বাসটির লৌহ কাঠামোটি রয়েছে। এই ভয়াবহ হামলায় চারজন প্রাণ হারিয়েছে এবং আরও ৩৬ জন আহত হয়েছে। এছাড়া ব্রিটিশ পর্যটকবাহী একটি মিনিবাসে গ্রেনেড নিক্ষেপ করা হলে এটি বাসের জানালায় আঘাত করলেও বিস্ফোরিত হয়নি।
কেনিয়ায় ২০১১ সালের পর এটাই বিদেশি পর্যটকদের ওপর প্রথম হামলার ঘটনা। ব্রিটিশ পর্যটকরা বাসটিতে করে কেনিয়ার জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র মাসাই মারা সাফারি পার্ক থেকে ফিরছিল। ২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে সোমালিয়ার অদূরে কেনীয় উপকূলে অবস্থিত একটি বিলাসবহুল পর্যটন গ্রামে অপহরণকারীদের প্রতিরোধ করতে গিয়ে ব্রিটিশ পর্যটক ডেভিড টেবুট প্রাণ হারান। এ সময় তার স্ত্রী জুডিথকে অপহরণ করে সোমালিয়ায় নিয়ে যাওয়া হয়। ছয় মাস বন্দি থাকার পর তাকে মুক্তি দেওয়া হয়।

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ