Home / আন্তর্জাতিক / সিরীয় বিদ্রোহীদের সাহায্য দেবে না যুক্তরাষ্ট্র-ব্রিটেন

সিরীয় বিদ্রোহীদের সাহায্য দেবে না যুক্তরাষ্ট্র-ব্রিটেন

সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে লড়াইরত বিদ্রোহীদের ‘নন লিথাল’ সাহায্য দেওয়া বন্ধ করেছে যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেন। ওয়াশিংটন ও লন্ডনের কূটনীতিকরা জানিয়েছেন, পশ্চিমা সমর্থিত বিদ্রোহী গ্রুপ ‘ফ্রি সিরিয়ান আর্মি’র কয়েকটি ঘাঁটি নবগঠিত ইসলামী ফ্রন্টের যোদ্ধারা দখল করে নেওয়ার পর এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশ দুটি। তারা আরও জানান, সামরিক সাজ-সরঞ্জাম, ওষুধপত্র, যানবাহন এবং যোগাযোগ রক্ষা করার জন্য যেসব উপকরণ বিদ্রোহীদের এতদিন সরবরাহ করা হয়েছে, তা আর দেওয়া হবে না। বিবিসি, আলজাজিরা।
আঙ্কারায় নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেনের রাষ্ট্রদূত জানিয়েছেন, সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে বিদ্রোহীদেরকে সামরিক সাজ-সরঞ্জাম এবং চিকিত্সা সহায়তা দেওয়া বন্ধ করেছে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য। তবে বন্ধ হয়নি মানবিক সাহায্য। সিরিয়ায় ইসলামিক ফ্রন্টের যোদ্ধারা পশ্চিমা সমর্থিত বিদ্রোহী গ্রুপ ‘ফ্রি সিরিয়ান আর্মি’র (এফএসএ) কয়েকটি ঘাঁটি দখল করে নেওয়ার পর সহায়তা বন্ধের এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। কেননা, এসব সাহায্য ইসলামী চরমপন্থীদের হাতে চলে যাওয়ার আশঙ্কা আছে বলে তারা মনে করেন। সিরিয়ায় বিদ্রোহী দলগুলোর নতুন জোট ইসলামিক ফ্রন্টের যোদ্ধারা গত সপ্তাহে তুরস্ক সংলগ্ন বাব-আল-হাওয়া সীমান্ত পারাপার এলাকায় এফএসএ জোটের যোদ্ধাদের হটিয়ে দিয়েছে। দু’দেশের কূটনীতিকরা এও জানিয়েছেন, মানবিক সাহায্য আগের মতোই দেওয়া হবে। কেননা জাতিসংঘসহ সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে এই মানবিক সাহায্য সরবরাহ করা হয়ে থাকে। যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেন আশঙ্কা করছে, যেহেতু উত্তরাঞ্চল থেকে ফ্রি সিরিয়ান আর্মির সেনাদের হটিয়ে দিয়ে সেই এলাকায় ইসলামিক ফ্রন্টের যোদ্ধারা নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার চেষ্টা করছে। ফলে তাদের পাঠানো এসব সহায়তা হয়তো এখন ইসলামী চরমপন্থীদের হাতে চলে যেতে পারে। হোয়াইট হাউসের সহকারী প্রেস সচিব বলেছেন, বাব-আল-হাওয়ায় উদ্ভূত পরিস্থিতিতে তারা এখনও তথ্য সংগ্রহ করছে। তথ্য সংগ্রহ প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবেই সিরীয় বিদ্রোহীদের নেতা জেনারেল ইদ্রিসের সঙ্গে এবং সুপ্রিম মিলিটারি কাউন্সিলের সদস্যদের সঙ্গে তারা আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন তিনি। ব্রিটেনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছে, তাদের জানা মতে, তাদের পাঠানো কোনো সহায়তা ইসলামী চরমপন্থীদের হাতে পৌঁছেনি। কিন্তু এরপরও সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলের প্রকৃত পরিস্থিতি ভালো করে যাচাই করা পর্যন্ত সহায়তা বাতিলের এই সিদ্ধান্ত বলবত্ থাকবে। ফ্রি সিরিয়ান আর্মিকে সরাসরি মারণাস্ত্র দেওয়ার কথাটি বরাবরই অস্বীকার করে এসেছে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের দেশগুলো।

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ