Home / খেলা / বার্সেলোনার প্রতিপক্ষ ম্যানসিটি

বার্সেলোনার প্রতিপক্ষ ম্যানসিটি

championsleague21-630x393_32579চ্যাম্পিয়ন্স লিগের নকআউট পর্বের ড্র বেশ কঠিন হয়ে গেল ইংলিশ জায়ান্ট ম্যানচেস্টার সিটির জন্য। প্রথমবারের মতো চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলতে উঠে প্রতিপক্ষ হিসেবে মহাশক্তিধর বার্সেলোনাকে পেল তারা। সিটিভক্তরা হতাশ হতেই পারেন। তবে এ ড্রয়ে খুশি হওয়ারও কোনো কারণ নেই বার্সেলোনার। কারণ শেষ ষোলতে তাদের প্রতিপক্ষ এমন দল, যারা কিছুদিন আগে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের প্রথম পর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন এবং দুর্দান্ত ফর্মে থাকা বায়ার্ন মিউনিখকে হারিয়েছে ৩-২ গোলে। তাও আবার সেই ম্যাচ কোথায় হয়েছিল জানেন?
-বায়ার্নের মাঠ অ্যালিয়েঞ্জ অ্যারেনায়!
যে মাঠে গত চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনালে বার্সেলোনাকে ৪-০ তে উড়িয়ে দিয়েছিল বায়ার্ন। এবার মৌসুম শুরুর আগে ওখানে প্রীতি ম্যাচ খেলতে গিয়েও সুবিধা করতে পারেনি বার্সা। অথচ সেই অ্যালিয়েঞ্জ অ্যারেনাতেই বায়ার্নের দর্প চূর্ণ করে এসেছে ম্যানসিটি।
এ জয়টাই হয়তো আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দিয়েছে সিটি বস ম্যানুয়েল পেল্লেগ্রিনির। বললেন, ‘আমাদের প্রতিপক্ষ হিসেবে পেয়ে উল্টো বার্সেলোনাই চিন্তায় থাকবে। কারণ দুই বছর আগের বার্সেলোনা আর এখনকার বার্সেলোনা এক কথা নয়। তাই চিন্তাটা আমাদের নয়, তাদের।’ সিটির প্রধান নির্বাহী সরিয়ানো বলেন, ‘আমরা আত্মবিশ্বাসী। কারণ আমাদের আছে এমন কোচ যিনি স্পেনে কাজ করেছেন। বার্সেলোনাকেও ভালো করে জানেন।’
সিটির বিপক্ষে ম্যাচ নিয়ে অনেকটাই নির্ভার বার্সা কোচ জেরার্ডো মার্টিনো। জানিয়ে দিলেন, প্রতিপক্ষ কোন দল তা নিয়ে এতটুকু মাথাব্যথা নেই তার। বললেন, ‘আমি মনে করি সিটিই প্রতিপক্ষ হিসেবে আমাদের চায়নি। কিন্তু যে কারোর বিপক্ষে খেলতেই প্রস্তুত। এটা ঠিক সিটি আমাদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ প্রতিপক্ষ। আমাদের সেখানে যেতে হবে এবং জিততে হবে।’
বার্সেলোনা এবং ম্যানসিটির মধ্যে কে কোয়ার্টার ফাইনালে-ব্যাপারটা নিয়ে বাজি ধরা ঝুঁকিপূর্ণ হলেও রিয়াল মাদ্রিদকে নিয়ে বাজি ধরাই যায়। কারণ শেষ ষোলতে রেকর্ড নয়বারের চ্যাম্পিয়ন রিয়ালের প্রতিপক্ষ তুলনামূলক দুর্বল জার্মানির শালকে ০৪। গত মৌসুমে বার্সেলোনার মতো শেষ চার থেকে বিদায় নিতে হয়েছিল রিয়ালকেও।
সিটির মতো বড় চ্যালেঞ্জ আরেক ইংলিশ জায়ান্ট আর্সেনালেরও। গত বছর এই শেষ ষোলতেই দেখা হয়েছিল দু’দলের। দুই লেগ মিলে ফল ৩-৩ হলেও অ্যাওয়ে গোলে এগিয়ে থাকার কারণে শেষ আটের টিকেট কেটেছিল বায়ার্ন মিউনিখ। পরে বরুশিয়া ডর্টমুন্ডকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন্সও হয় বাভারিয়ানরা। কাকতালীয়ভাবে এবারও নকআউট পর্বের শুরুতে দেখা হচ্ছে তাদের। তাহলে এবারও কি ট্রফি যাচ্ছে বায়ার্নের ঘরে? সেটা পরের কথা। কারণ গতবারের আর্সেনাল আর এবারকার আর্সেনাল এক কথা নয়। শেষ ষোলতে আর্সেনালকে পেয়ে তাই খুশি নন বায়ার্ন প্রেসিডেন্ট কার্ল হেইঞ্জ রুমেনিগে। বললেন, ‘আর্সেনাল নয়, জেনিতকে পেলেই আমাদের জন্য সহজ হতো। ড্রটা আমাদের জন্য আরও সহজ হতে পারত।’
ড্র নিয়ে চেলসি বস হোসে মরিনহোর অবশ্য খুশি হওয়ারই কথা। কারণ তাদের প্রতিপক্ষ তুরস্কের দল গালাতাসারে। গতবার প্রথম পর্ব থেকে বিদায় নিয়ে বাজে একটা রেকর্ডের জন্ম দিয়েছিল চেলসি। আইভরিয়ান তারকা দিদিয়ের দ্রগবার জন্য অন্যরকম অভিজ্ঞতা হবে এবার। আট বছর চেলসিতে খেলার পর চীন হয়ে গত বছর গালাতাসারে যোগ দেন এ স্ট্রাইকার। ২০১২ সালে বায়ার্নকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ট্রফি ঘরে তুলেছিল ব্লুজরা। জয়ের অন্যতম নায়ক ছিলেন দ্রগবা। এবার সেই চেলসির মুখোমুখি হতে হচ্ছে তাকে।
মরিনহোর চেয়ে আরও বেশি খুশি হওয়ার কথা ডেভিড ময়েসের। ইংলিশ লিগে বাজে অবস্থার কারণে চাকরিটা যাই যাই করছে তার। আগামী বছরের চ্যাম্পিয়ন্স লিগ খেলা নিয়েই অনিশ্চয়তায় ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। তবে এবারের চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠা নিয়ে বোধকরি তেমন চিন্তা করতে হচ্ছে না তাদের। কারণ তাদের প্রতিপক্ষ গ্রিসের অলিম্পিয়াকস। সহজ প্রতিপক্ষ পেয়েছে প্যারিস সেন্ট জার্মেইও। তাদের প্রতিপক্ষ বেয়ার লেভারকুসেন।
দারুণ জমে উঠবে এসি মিলান ও আতলেটিকো মাদ্রিদের শেষ আটে ওঠার লড়াইটা। গতবারের রানার্সআপ বরুশিয়া ডর্টমুন্ড পেয়েছে জেনিত সেন্ট পিটার্সবার্গকে।
শেষ ষোলোর প্রথম লেগ ১৮ থেকে ২৬ ফেব্রুয়ারি। ১১ থেকে ১৯ মার্চ হবে দ্বিতীয় লেগের ম্যাচগুলো। দুই লেগের কোয়ার্টার ফাইনাল হবে ১ ও ২ এবং ৮ ও ৯ এপ্রিল। সেমিফাইনালও দুই লেগের, ২২ ও ২৩ এপ্রিল এবং ২৯ ও ৩০ এপ্রিল। পর্তুগালের রাজধানী লিসবনের স্টেডিয়াম অব লাইটে ফাইনাল হবে আগামী ২৪ মে।

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ