Home / নির্বাচন / ভোটের মজা নেই তাই নবীন তারকাদের ভোটে অনীহা
ভোটের মজা নেই তাই নবীন তারকাদের ভোটে অনীহা

ভোটের মজা নেই তাই নবীন তারকাদের ভোটে অনীহা

নির্বাচন বা ভোট আসলেই দেশের বিভিন্ন জায়গায় এক ধরনের উৎসবের আমেজ পাওয়া যায়। ৫ জানুয়ারি দশম সংসদ নির্বাচন। তবে এবারের চিত্রটা একটু ভিন্ন। জনমনে নেই কোন উৎসবের আমেজ। আছে নানা ধরনের আতঙ্ক। তাই শোবিজের বেশ কিছু তরুণ তারকা ভোট দিতে যাচ্ছেন না। আবার অনেকে ভোটকেন্দ্রে যেতে ভয়ও পাচ্ছেন। এসব নিয়ে বাংলানিউজের বিনোদন বিভাগের এই আয়োজন…

জান্নাতুল ফেরদৌস পিয়া : আমি তো খুলনার মেয়ে। সেখানকার ভোটার। তবে এবার প্রথমবার ভোট দেওয়ার কথা ছিল। দিতে পারছি না। ঢাকার যে পরিস্থিতি, সেখানে খুলনা গিয়ে কিভাবে ভোট দিব? তবে জীবনের প্রথম ভোট দিতে পারলাম না। খুব খারাপ লাগছে। দেশের এই অবস্থার সমাধান চাই।

কাজী আসিফ : ভোট দিব। ধানমন্ডিতে বাসা। তাই বাবা-মা সহ ধানমন্ডিতে ভোট দিতে যাব।

ভাবনা : কক্সবাজারে শুটিং করছি। ভোট দেওয়া হচ্ছে না। তবে এবারই প্রথম ভোটার হয়েছি। তবে ঢাকায় থাকলেও আমি যে ভোট দিতে যাব, এর নিরাপত্তা আমাকে কে দিবে? দেশে তো সেই পরিস্থিতি নাই।

শারমিন জোহা শশী : কক্সবাজারে আছি শুটিংয়ে। ভোট দিতে পারছি না। আমাকে ৪-৫ দিন থাকতে হচ্ছে এরখানে। ঢাকাতে থাকলেও যে কি করতাম জানি না। দেশে তো শান্তি নেই।

তানভীর তনু : নড়াইলে আসছি। ভোট দেওয়ার জন্য না। এমনিই বেশকিছুদিন টানা শুটিং করে দেশের বাড়িতে বিশ্রামে এসেছি। দেশের অবস্থার উপরে এবার ভোট নির্ভর করছে। গতবার নির্বাচনের সময় ভোটার হয়েছিলাম। আর এবারতো নির্বাচন তো হয়েই গেছে। প্রধান বিরোধীদল এবার নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে না। আর কি! ভোটের মজা এবার নেই।

উর্মিলা শ্রাবন্তী কর : অবশ্যই ভোট দিব। বারিধারায় আমার ভোট কেন্দ্র হওয়ার কথা। সেখানে পরিবারসহ ভোট দিতে চাই।

সুজানা : আমার ভোটকেন্দ্র মিরপুর এলাকায়। কিন্তু দেশের এ পরিস্থিতিতে তো ঘর থেকেই বের হওয়া মুশকিল। তাই ভোট দিতে যাচ্ছি না।

মীর সাব্বির : আমি ধানমন্ডির ভোটার। তবে এবার আমার ভোটের অধিকার-ই নাই। কারণ আমার ধানমন্ডি আসনের যে প্রার্থী, তিনি তো বিনা প্রতিযোগিতায় জয়ী হয়েছেন। কারণ তার তো কোন প্রতিদ্বন্দ্বী নেই। এটা খুবই হতাশার। আর আরো খারাপ লাগছে নতুন প্রজন্মের জন্য। যারা এবারই প্রথম ভোটার হয়েছেন। তারা তো অনেক আসনেই ভোট দিতে পারছে না। পাঁচ বছর পর এ ভোটের উৎসব আমাদের দেশে হারিয়ে যাচ্ছে।

আইরিন : গতবার ভোটার হয়েছিলাম, ভোট দিয়েছি। এবার দিচ্ছি না। আমি ঢাকার ভোটার। বাসা থেকে বের হতে বাবা মা নিষেধ করেছেন। আর আমিও দেখছি, পরিস্থিতি ভালো না। তাই এবার ভোট দেওয়া হচ্ছে না।

আলিশা প্রধান : খুবই ইচ্ছে ছিল এবার ভোট দেওয়ার। কারণ প্রথমবার ভোট দিতে যাওয়ার কথা। তবে এবার দিব না। কারণ সঠিক নির্বাচন না হলে ভোট দিয়ে কি হবে?

চিত্রনায়িকা আঁচল : এবারই প্রথমবার ভোটার হয়েছি। তবে ভোট দিতে বাসা থেকে কেউ যাচ্ছেন না।

কাজী মারুফ : আমার ভোটকেন্দ্র ইস্কাটন। ভোট না নিয়েই এখানকার প্রার্থী জয়ী হয়েছে। ভোট দিয়ে আর কি হবে। আমরা তো পুতুল হয়ে গেছি, যেভাবে নাচাচ্ছে সেভাবেই নাচছি আমরা।

শফিক তুহিন : ভোট দিচ্ছি না। না ভোট থাকলে থাকলে দিতাম একটা। কারণ এই ভোট সিস্টেম তো গণতান্ত্রিক অধিকার-ই নষ্ট করে দিয়েছে।

পুজা : আমার এলাকা সিদ্ধেশ্বরিতে ভোটার কেন্দ্র নাই। আর আমি ভোট দিতে পারছি না। কারণ আমার ভোটার আইডি কার্ড হাতে পায়নি। তবে এবার আমি ভোটার।

প্রতীক হাসান : আমার ভোট এলাকা রামপুরা। কিন্তু ভোট দিতে যাই নি। কারণ এখানে ভোট হচ্ছে না।

শিমুল খান : আমি ঢাকার-ই ভোটার। ভোটার আইডি ঠিক নাই, এজন্য ভোট দিতে যাচ্ছি না। আর ভোটের যে উৎসব থাকার কথা, সেটা তো নেই।

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ