Home / নির্বাচন / রাজধানীর লাকি সেভেন কারা ?
রাজধানীর লাকি সেভেন কারা ?

রাজধানীর লাকি সেভেন কারা ?

নির্বাচনী আমেজ ততটা দেখা না গেলেও ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে তীব্র ভোটযুদ্ধে অবতীর্ণ হচ্ছেন রাজধানী ঢাকার ৭টি আসনের প্রার্থীরা। তবে বেশিরভাগ আসনেই আওয়ামী লীগের প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগই। আবার কয়েকটি আসনে সঙ্গী হয়েছে মহাজোটের শরিক এরশাদের জাতীয় পার্টিও।

এক নজরে দেখা যাক সেই লাকি সেভেন ৭টি আসনের অবস্থা।

ঢাকা-৪: ডিসিসি দক্ষিণের ৪৭,৫১,৫২,৫৩ ও ৫৪ ওয়ার্ড এবং শ্যামপুর ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত ঢাকার এই আসনটি। এ আসনে লড়ছেন জাতীয় পার্টির সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা।
অপরদিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা ড. আওলাদ হোসেন। গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের এমপি ছিলেন সানজিদা খানম। তবে সমঝোতার ভিত্তিতে এ আসনটি এবার জাতীয় পার্টিকে ছেড়ে দিয়েছে আওয়ামী লীগ। কিন্তু এতে বাগড়া দিয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক নেতা আওলাদ হোসেন। অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হলে তিনিই বিজয়ী হবেন বলে মনে করছেন এই স্বতন্ত্র প্রার্থী।

অবশ্য লাঙ্গল আর হাতির লড়াইয়ে কে এগিয়ে থাকবেন সেটা জানা যাবে আর এক দিন পরই।

ঢাকা-৫: ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৪৮,৪৯, ৫০ নং ওয়ার্ড ও ডেমরা-শ্যামপুরসহ যাত্রাবাড়ী থানার ডেমরা-দনিয়া-মাতুয়াইল-সারুলিয়া ইউনিয়ন মিলিয়ে এ আসন।

যথারীতি আওয়ামী লীগ প্রার্থী হাবিবুর রহমান মোল্লার বিপক্ষে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন তিনজন প্রার্থী। এর মধ্যে মালা প্রতীক নিয়ে তরিকত ফেডারেশনের আরজু শাহ সায়দাবাদী, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির আবদুর রশিদ সরকার কুঁড়েঘর প্রতীক নিয়ে এবং বাইসাইকেল প্রতীক নিয়ে লড়ছেন জাতীয় পার্টির (জেপি)মনির হোসেন কমল।

এ আসনে অংশ নেওয়া চার প্রার্থীই মহাজোটের।তবে নৌকা প্রতীক নিয়ে হাবিবুর রহমান মোল্লাই এগিয়ে থাকবেন বলে মনে করেন ওই আসনের ভোটাররা।

ঢাকা-৬: ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৩৪, ৩৭,৩৮, ৩৯, ৪০, ৪১, ৪২, ৪৩, ৪৪, ৪৫ ও ৪৬ ওয়ার্ড মিলিয়ে এ আসনের সীমানা। ঢাকা-৪ আসনের মতো সমঝোতার কারণে এ আসনে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী মিজানুর রহমান খান দীপু সরে দাঁড়াতে বাধ্য হন। আসনটি ছেড়ে দেওয়া হয় মহাজোটের শরীক জাতীয় পার্টির ফিরোজ রশীদকে। অবশ্য ক’দিন আগে হঠাৎই অসুস্থ হয়ে ঢাকার একটি হাসপাতালে মারা যান দীপু।

তবে লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে একেবারেই ফাঁকা মাঠে জয়ী হতে পারছেন না জাতীয় পার্টির এই নেতা। তাকে লড়তে হচ্ছে কুঁড়েঘর প্রতীক নেওয়া বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির মো.আকতার হোসেন এবং হাতি প্রতীক নিয়ে দাঁড়ানো স্বতন্ত্রপ্রার্থী মো. সাইদুর রহমান শহীদের সঙ্গে (শহীদ কমিশনার)।

ঢাকা-৭: নৌকা আর হাতির লড়াই রাজধানীর সব এলাকার মানুষের মুখে মুখে। কারণ এ আসনে ম‍ূলত লড়াই হচ্ছে আওয়ামী লীগেরই দুই প্রার্থীর মধ্যে। যদিও ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ২৩-৩৬ (৩৪ নম্বর ছাড়া) নম্বর ওয়ার্ড মিলিয়ে আসনের সীমানা।

নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন বর্তমান সংসদ সদস্য ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন। স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য ও ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাজী মোহাম্মদ সেলিম প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন হাতি প্রতীক নিয়ে। আনারস প্রতীক নিয়ে মোহাম্মদ রিয়াজ উদ্দিন অংশ নিচ্ছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে।

ঢাকা-১৫: ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ৪, ১৩, ১৪ ও ১৬ নম্বর ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত এ আসন। মূলত রাজধানীর কাফরুল ও মিরপুর থানার একাংশ পড়েছে এ আসনে।

এ আসনে লড়াই হচ্ছে সরকার সমর্থক দুই প্রার্থীর মধ্যেই। আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী কামাল আহমেদ মজুমদার নৌকা প্রতীক নিয়ে আর হাতি প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছেন আওয়ামী লীগ নেতা এখলাস উদ্দিন মোল্লা।

রয়েছেন মহাজোটের অপর শরীক জাসদের মোহাম্মদ সাইফুল ইসলামও। তার প্রতীক মশাল।

ঢাকা-১৬: ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ২, ৩, ৫ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ড মিলিয়ে এ আসনের সীমানা। এ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লা। নৌকা প্রতীক নিয়ে অংশ নিচ্ছেন তিনি। অপর প্রার্থী বিএনএফ’র মোহাম্মদ খালিদ হোসেন আছেন টেলিভিশন প্রতীক নিয়ে, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে আনারস প্রতীক নিয়ে লড়ছেন সর্দার মোহাম্মদ মান্নান। যথারীতি ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লাই জিতবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ঢাকা-১৭ : ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ১৫, ১৮,১৯, ২০ ওয়ার্ড ও ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট এলাকা মিলিয়ে এ আসনের সীমানা। এ আসনে আওয়ামী লীগের কোনো প্রার্থী নেই।

তবে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ছিলেন এ আসনের প্রার্থী। প্রতীক বরাদ্দের সময় তার পক্ষে রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে কেউ উপস্থিত না থাকায় শেষ পর্যন্ত তার নামে প্রতীক বরাদ্দ হয়নি। এর আগে মনোনয়ন প্রত্যাহারের জন্য এরশাদ আবেদন করলেও যথাযথ হয়নি বলে নির্বাচন কমিশন তার মনোনয়ন বাতিল করে নি।

নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটে দেখা গেছে, জেপির আব্দুল লতিফ মল্লিক লড়ছেন বাইসাইকেল প্রতীক নিয়ে, স্বতন্ত্রপ্রার্থী এমএ হান্নান মৃধা লড়ছেন ফুটবল প্রতীক এবং বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্টের (বিএনএফ) চেয়ারম্যান এসএম আবুল কালাম আজাদ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন টেলিভিশন প্রতীক নিয়ে। ভোটারদের ধারণা এরশাদ না থাকায় মাঠে এরশাদের অনুপস্থিতিতে বিএনএফের প্রার্থীই বিজয়ী হতে পারেন।

ঢাকা-১৮ : ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ১ ও ১৭ নম্বর ওয়ার্ড, উত্তরা, তুরাগ, বিমানবন্দর, উত্তরখান, দক্ষিণখান, খিলক্ষেত,হরিরামপুর, উত্তরখান,দক্ষিণখান, ডুমনি ইউনিয়নসহ বিমানবন্দর এলাকা নিয়ে গঠিত এ আসন।

নৌকা প্রতীক নিয়ে এ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হচ্ছেন বর্তমান সংসদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন। তার একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনএফের মো. আতিকুর রহমান নাজিম। নাজিমের প্রতীক টেলিভিশন। ভোটাররা মনে করছেন অচেনা নাজিমের কারণেই নিরঙ্কুশ জয় পাবেন সাহারা খাতুন।

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ