Home / অর্থনীতি ও বানিজ্য / পাঁচ কোটি ডলার ঋণ পাচ্ছে স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপ

পাঁচ কোটি ডলার ঋণ পাচ্ছে স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপ

গাজীপুরের কোনাবাড়িতে আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপের কারখানা পুনরায় চালু করতে মাত্র দেড় শতাংশ সুদে ২৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার (২ কোটি ৫০ লাখ ডলার) ঋণ সহায়তা দেবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

তাছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংকের অপর একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয় বৈদেশিক মুদ্রায় দীর্ঘ মেয়াদে তিনটি বিদেশি ব্যাংক আরও ২৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋণ সুবিধা প্রদান করবে। অর্থ্যাৎ ক্ষতিগ্রস্ত স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপ কারখানা পুনরায় চালু করতে ৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার(পাঁচ কোটি মার্কিন ডলার) ঋণ পাবে।

রোববার বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমানের সঙ্গে ক্ষতিগ্রস্ত স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপের প্রতিনিধি দলের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বৈঠকে ডেপুটি গভর্নর এস কে সুর চৌধুরী, বিজিএমইএ এর সভাপতি আতিকুল ইসলাম ও স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপে ঋণ প্রদানকারী পাঁচটি ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা(সিইও) ও স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপের চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান,ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোশাররফ হোসেন সহ বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক মাহফুজুর রহমান ও এস এম মনিরুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক শেষে ডেপুটি গভর্নর এস কে সুর চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপের কারখানা পুনরায় চালু করতে রফতানি উন্নায়ন তহবিল (ইডিএফ) থেকে স্বল্প সুদে ২৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋণ সহায়তা দেয়া হবে।

এসকে সুর চৌধুরী বলেন, ইডিএফ তহবিল থেকে কোনো ব্যাংককে পুনঃঅর্থায়ন করলে ইউএসডি লিবর অর্থাৎ শূন্য দশমিক ৫০ শতাংশের সঙ্গে এক শতাংশ হরে চার্জ আরোপ করতো। কিন্তু বাংলাদেশ ব্যাংক এক্ষেত্রে শূন্য দশমিক ৫০শতাংশ চার্জ কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। একই সঙ্গে অন্যান্য বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো ইউএসডি লিবার এর সঙ্গে ১ দশমিক ৫০ শতাংশ চার্জ আরোপ করে। তবে শুধু স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপের সেক্ষেত্রে শূন্য দশমিক ৫০ শতাংশ চার্জ কমানোর নির্দেশ দেয়া হবে।

তিনি আরও বলেন, এ তহবিল থেকে ঋণের নেয়ার মেয়াদ তবে গ্রহণকারীদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তা বাড়ানোর সুপারিশ করা হবে।

বিদ্যমান বকেয়া ঋণের মেয়াদপূর্তিতে ৬ মাস করে ৩ বছর শুধু আসল নবায়ন করবে। অর্থায়নকারী ব্যাংক একই নিয়ম অনুসরণ করবে। এ সুবিধা স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপের অধীনে রফতানি উন্নয়ন তহবিল (ইডিএফ) সুবিধা গ্রহণকারী সকল প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।

ডেপুটি গভর্নর জানান, স্থানীয় মুদ্রায় বিদ্যমান দায়-দেনা ব্যাংকগুলোর সম্মতিক্রমে ১৫ শতাংশ ডাউন পেমেন্টের বিপরীতে শূন্য শতাংশে গ্রেস পিরিয়ডসহ পাঁচ বছর মেয়াদে পুনঃতফসিল করতে পারবে।

ডেপুটি গভর্নর আরও জানান, কাঁচামাল ও মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানির জন্য স্থাপিতব্য ঋণপত্রের ক্ষেত্রে কেইস-টু -কেইস ভিত্তিতে যে ঋণপত্রের জন্য যতটুকু সময় দরকার তাদের চাহিদা মতো তা বিবেচনা করবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ