Home / রাজধানী / ‘মার্চ ফর ডেমোক্রেসি’ সফলে বিএনপির নির্দেশনা
প্রথম দিনে ৫২৩ নেতাকর্মী আহত হওয়ার দাবি বিএনপির

‘মার্চ ফর ডেমোক্রেসি’ সফলে বিএনপির নির্দেশনা

ঢাকা: ‘মার্চ ফর ডেমোক্রেসি‘ কর্মসূচি সফল করতে দিক নির্দেশনা দিয়েছে বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। ঢাকায় আসা ১৮ দলীয় জোটের নেতাকর্মীরা নয়াপল্টনে জড়ো হতে কে কোন সড়ক ব্যবহার করবেন ইত্যাদি বিষয়ে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করেছে বিএনপির দায়িত্বশীল সূত্র। একই সঙ্গে সরকারের বাধা ঠেকাতে বিভিন্ন কৌশল নিয়েও কেন্দ্রীয় নেতারা নেতাকর্মীদের সঙ্গে আলোচনা করেছেন বলে দাবি তাদের।

কর্মসূচিতে অংশ নেওয়ার সময় পুলিশ ও সরকার সমর্থকদের সঙ্গে কোন ধরনের সংঘর্ষে না জড়াতেও নির্দেশনা রয়েছে বলে সূত্র দাবি করেছে। তবে জোর করে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করলে বা বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদের উপর আক্রমণ চালানোর চেষ্টা করলে তার দাঁতভাঙা জবাব দেয়ার নির্দেশনা রয়েছে বলে জানান তারা।

দলটির দায়িত্বশীল এক নেতা জানান, ‘মার্চ ফর ডেমোক্রেসি’ কর্মসূচি সফল করতে বিএনপির সিনিয়র নেতাদের এলাকা ভাগ করে দেয়া হয়েছে। বিএনপিসহ ১৮ দলের নেতারা চার ভাগে বিভক্ত হয়ে এ দায়িত্ব পালন করবেন বলে জানা যায়।

দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নয়াপল্টনের কাছাকাছি অবস্থান নেবেন। সকালেই তিনি নয়াপল্টনে উপস্থিত থাকবেন বলে তার ঘনিষ্ঠ সূত্র দাবি করেছে।

এ ছাড়া দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশররফ হোসেন, ড. মঈন খান, মির্জা আব্বাস,গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ছাড়াও ভাইস চেয়ারম্যান উপদেষ্টা,যুগ্ম মহাসচিব ও সাংগঠনিক সম্পাদকেরা নয়াপল্টনের দিকে আসা নেতাকর্মীদের নেতৃত্ব দেবেন। তাদের সঙ্গে ১৮ দলের নেতারাও থাকবেন বলে জানা গেছে বিএনপি’র সূত্রে।

প্রেসক্লাব পল্টন সড়ক ব্যবহার করে রোববার সকালে ১৮ দল সমর্থিত আইনজীবী,বুদ্ধিজীবী,কবি-সাহিত্যিক,পেশাজীবী,শিক্ষক ও শিল্পীরা নয়াপল্টনের উদ্দেশে যাত্রা করবেন।

মুন্সীগঞ্জ, কেরানীগঞ্জসহ রাজধানীর আশপাশের এলাকার নেতাকর্মীরা নয়াবাজার হয়ে পল্টনে ঢোকার চেষ্টা করবেন। নারায়ণগঞ্জ নরসিংদী,রূপগঞ্জ,যাত্রাবাড়ী,ডেমরাসহ রাজধানী ঢাকার আশপাশের এলাকার নেতা-কর্মীরা মতিঝিল হয়ে পল্টনের দিকে প্রবেশ করার চেষ্টা করবে।

এছাড়া মিরপুর-গাবতলীসহ আশপাশের এলাকার নেতাকর্মীরা বাংলা মটর ফার্মগেট, শাহবাগ হয়ে আসবেন। তবে হেমায়েতপুর আমিনবাজার সাভারের একটি গ্রুপ জড়ো হবে গাবতলীতে।

উত্তরা,নাবিস্কো,তেজগাঁও,মহাখালী ও রামপুরা এলাকার নেতা কর্মীরা জড়ো হবে মগবাজার মালিবাগ এলাকায়।

বিরোধী দলনেতা খালেদা জিয়াকে কার্যত অবরুদ্ধ করে রাখা হলেও দলের শীর্ষ নেতারা তার খোঁজখবর রাখছেন বলে জানা গেছে বিএনপির সূত্রে।

কিশোরগঞ্জ বিএনপির সভাপতি এ্যাডভোকেট ফজলুল হক জানান তিনি দুইদিন আগে ঢাকায় এসেছেন, দলের সিনিয়র নেতারা তাদের দিক নির্দেশনা দিচ্ছেন।

জামালপুর থেকে আসা বিএনপি নেতা জিলানী বলেন, ‘হয় আমরা টিকে থাকবো নয়তো রাজনীতি থেকে অনেক দূরে যেতে হবে। কাল আমাদের চূড়ান্ত লড়াই। তবে ব্যর্থ হলে যেহেতু জেলে যেতে হবে তাই যেতে হয় রাজপথ থেকেই যাবো।‘

বাড্ডায় অবস্থানকারী মেহেরপুরের সাবেক এমপি মাসুদ অরুণ বলেন, ‘সারা দেশের মত শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্থিতি থেকে ঢাকাবাসীও মুক্তি চায়।’ তিনি বলেন, ‘স্বাভাবিক লড়াইয়ের মধ্য দিয়ে পরিস্থিতির উত্তরণ ঘটবে না। তাই মরণপণ লড়াইয়ে নেমেছি, এ জন্যই ঢাকা এসেছি। বিজয় হবেই।’

জোটের শরীক ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ নেজামী বলেন, ‘সরকার পাহাড়সম প্রাচীর তৈরি করেছে। এরপরও লাখ লাখ মুক্তিকামী মানুষ ঢাকায়। শুধু দলীয় নেতারাই নন, সাধারণ মানুষও পরস্পরকে সহযোগিতা করছেন। তারাও ভোটের অধিকার রক্ষায় রোববার রাস্তায় নামবেন বলে দাবি তার।’

বাধা দিলে পরিস্থিতি সরকারের বিপক্ষে যাবে বলেও দাবি করেন এই ধর্মীয় নেতা। একই কথা বলেছেন বিএনপির সহ দপ্তর সম্পাদক আসাদুল করিম শাহিন।

তিনি বলেন,‘বিএনপি প্রধান খালেদা জিয়া নয়াপল্টনে আসবেন আজকেও সিনিয়র নেতারা জানিয়েছেন। তবে তাকে যদি আটকে রাখা হয় তাহলে কোন পরিস্থিতির দায়দায়িত্ব সরকারকেই বহন করতে হবে।‘

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ