Home / আন্তর্জাতিক / কাদের মোল্লার ফাঁসি ইসলামী দুনিয়াসহ সারা বিশ্বকে বিক্ষুব্ধ করে তুলেছে

কাদের মোল্লার ফাঁসি ইসলামী দুনিয়াসহ সারা বিশ্বকে বিক্ষুব্ধ করে তুলেছে

একটি ত্রুটিপূর্ণ ও প্রতিহিংসামূলক আইনের অধীনে গঠিত ট্রাইব্যুনালের রায় এবং ১৯৭১ সালে নাবালিকা এক মহিলার স্ববিরোধী ও শোনা কথার ভিত্তিতে জামায়াত নেতা আব্দুল কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে প্রদত্ত ফাঁসির রায় কার্যকরের ঘটনা মুসলিম বিশ্বসহ সারা দুনিয়ায় ব্যাপক ক্ষোভ ও প্রতিবাদের সঞ্চার করেছে। গত ১৪-১৫ ডিসেম্বর তুরস্কের প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী নগরী ইস্তাম্বুলে অবস্থিত হোটেল হলিডে ইন এর বলরুমে ওআইসির উদ্যোগে মুসলিম বিশ্বের সিভিল সোসাইটি প্রতিষ্ঠানসমূহের পঞ্চম বার্ষিক সভার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আব্দুল কাদের মোল্লার ফাঁসির ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে মিথ্যা ও বানোয়াট অভিযোগে ইসলামী আন্দোলনের এই মহান নেতাকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে হত্যা করার জন্য বাংলাদেশ সরকারের তীব্র সমালোচনা করা হয় এবং কাদের মোল্লাকে শহীদ আখ্যায়িত করে তার রূহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করা হয়। উল্লেখ্য যে, ওআইসির উদ্যোগে এবং তুরস্কের শীর্ষস্থানীয় সমাজকল্যাণ ও ত্রাণ সংস্থা আইএইচএইচ হিউম্যানিটেরিয়ান ফাউন্ডেশনের আতিথেয়তায় অনুষ্ঠিত এই সম্মেলনে ওআইসির ৫৭টি সদস্যদেশ ছাড়াও বিশ্বের আরো ৪৩টি দেশের মোট ২২৫জন প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করেন।

দু’দিনব্যাপী ৮টি অধিবেশনে বিভক্ত এই সম্মেলনের উদ্বোধন করেন ওআইসি মহাসচিব একমেলুদ্দিন এবং এতে অতিথি বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ওআইসির মানবিক সাহায্য তহবিলের বোর্ড অব ট্রাস্টি এবং সিভিল অর্গানাইজেশন ‘কিলা’ বোর্ড অব ডাইরেক্টরস এর চেয়ারম্যান শেখ ড. আবদুল আজিজ বিন আবদুর রহমান আল সানি, জিডিবি ইনস্টিটিউটের চেয়ারম্যান ড. আব্দুল হালিম যাইডান, ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর রিসার্স এন্ড স্টাডিজ, মিডাড এর পরিচালক ড. খালিদ আল সারিহি, মুসলিম এইড এর চীফ এক্সিকিউটিভ অফিসার সাইয়েদ শরফুদ্দিন ইউরোপিয়ান কমিশনের মানবিক সাহায্য ও বেসামরিক প্রতিরক্ষা বিভাগের আঞ্চলিক পরিচালক ডেভিড ‘ভারবুম, জেনেভাস্থ হিউম্যানিটারিয়ান এফেয়ার্স সংক্রান্ত সমন্বয় দফতরের প্রধান রাশেদ খালিকভ, আন্তর্জাতিক রেড ক্রস কমিটির ঙঢ়ধৎঃরড়হং ঋড়ৎ এষড়নধষ অভভধরৎং ধহফ হবঃড়িৎশ এর পরিচালকের উপদেষ্টা রোনাল্ড অপাটারিংগার, ইসলামিক রিলিফ ওয়ার্ল্ড ওয়াইডের প্রধান ড. মোহাম্মদ আশমাওয়ে যুক্তরাজ্যের হিউম্যানিটারিয়ান ফোরাম এর পরিচালক ড. হানি আল বান্না প্রমুখ।

সম্মেলনে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মানবসৃষ্ট এবং প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে দুর্দশাগ্রস্ত হতভাগ্য মানুষের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ এবং তাদের সামাজিক ও অর্থনৈতিক পুনর্বাসন কার্যক্রমের অগ্রগতি পর্যালোচনা করা হয় এবং এক্ষেত্রে সিভিল অর্গানাইজেশন তথা বেসামরিক বেসরকারি সংস্থাসমূহের সমস্যাবলী ও সেগুলো উত্তরণের সম্ভাব্য পন্থাসমূহ তুলে ধরা হয়। এতে সিরিয়া, ফিলিস্তিন, ইয়েমেন, ইরাক, আফগানিস্তান, সোমালিয়া, আফ্রিকান সাহেল, দক্ষিণ সুদানসহ মুসলিম বিশ্বে ত্রাণ তৎপরতার গুরুত্ব ও সমন্বয়ের বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয় এবং মায়ানমার ও ভারতীয় কাশ্মির ও আসামসহ বিভিন্ন অমুসলিম দেশের মুসলিম অধ্যুষিত জনপদে গণহত্যা, অগ্নিসংযোগ এবং মুসলমানদের জায়গা জমি ও ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে হামলা ও জবরদখলের তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করা হয় এবং ক্ষতিগ্রস্ত অঞ্চলে ত্রাণ তৎপরতা জোরদারের আহ্বান জানানো হয়।

দু’দিনব্যাপী এই সম্মেলনের কার্যকরী অধিবেশন এবং অনানুষ্ঠানিক কর্মসূচিসমূহ জুড়ে আব্দুল কাদের মোল্লার শাহাদাতের বিষয়টি অত্যধিক গুরুত্ব লাভ করে। বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিরা কাদের মোল্লাকে আধুনিক যুগে ইসলামের জন্য জীবনদানকারী একজন শহীদ এবং সারাবিশ্বে ইসলামী আন্দোলনের নেতাকর্মীদের অনুপ্রেরণার উৎস ও রোল মডেল হিসেবে উল্লেখ করেন । তাদের দৃষ্টিতে কাদের মোল্লা শহীদ হাসানুল বান্না ও শহীদ সাইয়েদ কুতুবের যোগ্য অনুসারী। তারা শুধু কাদের মোল্লা নন বাংলাদেশে ইসলামী আন্দোলনের শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দের ওপর অত্যাচার, তাদের বিরুদ্ধে আনীত ভুয়া অভিযোগ ও মিথ্যা-ভিত্তিহীন সাক্ষ্যের ভিত্তিতে যাবজ্জীবন কারাদ- ও ফাঁসির দ-াদেশ প্রদান বেপরোয়াভাবে আলেম উলামাদের হত্যা এবং নির্যাতিত রোহিঙ্গা মুসলমান শরণার্থীদের ওপর নির্যাতন এবং তাদের মধ্যে ত্রাণ তৎপরতা পরিচালনায় বাধা সৃষ্টি প্রভৃতি কারণে বাংলাদেশ সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তারা এই অভিমতও প্রকাশ করেন যে, বাংলাদেশ সরকারের সাম্প্রতিক কালের ইসলাম ও মুসলিম বিদ্বেষী এই তৎপরতাগুলো বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম এই মুসলিম দেশটিকে ইসলামী দুনিয়া থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলছে। তারা এর অবসান কামনা করেন।

উল্লেখ্য যে, গত ১৮ ডিসেম্বর তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারায় আব্দুল কাদের মোল্লার স্মরণে একটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। সেমিনারে দুশতাধিক শিক্ষক, চিকিৎসক, সাংবাদিক, বুদ্ধিজীবী ও সমাজের নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গ অংশ গ্রহণ করেন এবং আগামী ২৫ ডিসেম্বর সেখানে অনুরূপ একটি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবার কথা রয়েছে। আব্দুল কাদের মোল্লার ফাঁসির পর তুরস্কের বিভিন্ন শহরে প্রায় ৫৭টি স্পটে বিক্ষোভ ও গায়েবানা জানাযা অনুষ্ঠিত হয়েছে এবং গণমাধ্যম বিশেষ করে টিভি চ্যানেলসমূহে তার ওপর বিশেষ অনুষ্ঠান প্রচার করা হয়েছে।

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ