Home / জাতীয় / হাস্যকর নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্টতা পেয়েছে আ.লীগ, বিজয় দিবসের পর জামায়াত-শিবির প্রতিরোধ
জাতীয় সংসদ নির্বাচন

হাস্যকর নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্টতা পেয়েছে আ.লীগ, বিজয় দিবসের পর জামায়াত-শিবির প্রতিরোধ

৩০০ আসনের মধ্যে সরকার গঠনের ম্যাজিক ফিগার ১৫১। ইতিমধ্যে ১৫১ টি আসনে বিনাপ্রতিদ্বন্ধিতায় জয় পেয়েছে আওয়ামী লীগ ও তার মিত্র দলগুলো। এখনি সরকার গঠন করতে পারে আওয়ামী লীগ। দেশের বিশিষ্টজনেরা বলছেন, মানুষের প্রতিনিধি মানুষের ভোট ছাড়াই নির্বাচিত হচ্ছেন। এমন হাস্যকর নির্বাচন এর আগে দেখেনি বাংলাদেশের জনগণ।

নিজস্ব প্রতিবেদক
শেষদিনে মনোনয়ন প্রত্যাহার করায় কোন প্রার্থী না থাকায় ১৫১টি আসনে নির্বাচন ছাড়াই জয় পেয়েছেন আওয়ামী লীগ ও তার শরীক দলগুলো। এর মধ্যে ১২৭টি আসনে আ.লীগ, ১৮টি আসনে জাতীয় পার্টি, ৩ আসনে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ), ২ আসনে ওয়ার্কার্স পার্টি ও ১ আসনে আনোয়ার হোসেন মুঞ্জুর জাতীয় পার্টি (জেপি)। আওয়ামী লীগ এখন সরকার গঠনের ম্যাজিক ফিগার পেয়ে গেছে।

১৭ ডিসেম্বর থেকে যৌথ বাহিনীর অপারেশন : সাতক্ষিরা, নিলফামারি, চট্টগ্রাম, লক্ষীপূরের দেশের বিভিন্নস্থানে জামায়াত-শিবির মরিয়া হয়ে আক্রমন চালাচ্ছে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতা কর্মী সমর্থকের উপর। পরিস্থিতির এতোটাই অবনতি হয়েছে যে, সরকারে আওয়ামী লীগ অথচ দলটির নেতা কর্মীরা কেউ বাড়িতে থাকতে পারছেন না জামায়াত-শিবিরের আক্রমনের ভয়ে। পরিস্থিতি সামাল দিতে আজ সরকারের একাদিক গোয়েন্দা সংস্থা দফায় দফায় বৈঠক করেছে। সবশেষে বিকেলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ও বৈঠক হয়েছে। বৈঠকে সর্বদলীয় সরকারের একাধিক মন্ত্রীও উপস্থিত হন। সেখানে বেশ কয়েকটি সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে কম্বিং অপরাশেন সহ আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নতি। তবে বৈঠকের বিষয়ে কেউ মুখ খোলেননি।
সূত্র জানায়, ১৭ ডিসেম্বর থেকে বিশেষ অপারেশন শুরু হবে। যৌথবাহিনীর সাথে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরাও থাকতে পারে অপারেশনে। জামায়াত-শিবিরকে কোন ছাড় দেয়া হবে না বলে সূত্র জানায়।

অতিতের সব রেকর্ড ভেঙ্গে গেছে : বর্তমান সরকারের আমলে ১৫১ জন সংসদ সদস্য বিনাপ্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। এরকম হাস্যকর নির্বাচন এর আগে আর দেশে অনুষ্ঠিত হয় নি।
নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা যায়, ১৯৭৩ সালে প্রথম সংসদ নির্বাচনে ১১ জন বিনাপ্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৭৯ সালে দ্বিতীয় সংসদ নির্বাচনে ১১ বিনাপ্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত হন। ১৯৮৮ সালে চতুর্থ সংসদ নির্বাচনে বিনাপ্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত হন ১৮ জন, ১৯৯৬ সালে (১৫ ফেব্রুয়ারি) ৪৯ জন এবং সর্বশেষ ২০১৪ দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিনাপ্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন ১৫১ জন।

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ