Home / শীর্ষ সংবাদ / সারাদেশে অবরোধের পাশাপাশি চলছে ৪৮ ঘণ্টার হরতাল

সারাদেশে অবরোধের পাশাপাশি চলছে ৪৮ ঘণ্টার হরতাল

প্রহসনের নির্বাচনের ফলাফল বাতিল ও নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে সোমবার ভোর ৬টা থেকে বুধবার ভোর ৬টা পর্যন্ত ৪৮ ঘণ্টার হরতাল শুরু হয়েছে। হরতালের পাশাপাশি ১৮দলীয় জোটের পূর্ব ঘোষিত অনির্দিষ্টকালের অবরোধ চলছে। সোমবার ভোর থেকে সড়ক-মহাসড়ক গুলোতে মালবাহী ট্রাক ছাড়া দূরপাল্লার কোনো যানবাহন চলাচল করতে দেখা যায় নি। এছাড়া হরতালের শুরুতে বড় ধরনের কোনো নাশকতার খবর পাওয়া যায় নি।

রাজধানীর মহাখালী বাস টার্মিনাল থেকে দূরপাল্লার কোনো বাস ছেড়ে যায় নি। তবে, যাত্রাবাড়ী এলাকায় যান চলাচল অনেকটা স্বাভাবিক দেখা গেছে। দূরপাল্লার কোনা বাস ছেড়ে না গেলেও রাজধানীর আশপাশের এলাকায় বাস চলাচল করছে। সকাল থেকে রাজধানীর কোথাও হরতালের সমর্থনে জোট নেতাকর্মীদের মিছিল বা পিকেটিং করতে দেখা যায় নি। যে কোনো ধরনের নাশকতা এড়াতে অন্যান্য হরতালের মতো আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা তৎপর রয়েছে। র‍্যাব, পুলিশের পাশাপাশি সেনাবহিনীও স্টাইকিং ফোর্স হিসেবে অবস্থান করছে। নতুন বছরে এ নিয়ে দ্বিতীয় বারের মতো হরতাল দিলো বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮দলীয় জোট। এর আগে ১ জানুয়ারি থেকে লাগাতার অবরোধের পাশাপাশি ৪ ও ৫ জানুয়ারি টানা ৪৮ ঘণ্টা হরতাল দিয়েছিলো।

এদিকে বরাবরের মতো রাজধানীর নয়াপল্টন বিএনপি কার্যালয়ের ভেতরে বা আশপাশে কোনো নেতাকর্মীকে দেখা যায় নি। অন্যান্য হরতালের মতো কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের গেটে তালা ঝুলতে দেখা গেছে।

এর আগে রোববার বিকেল সাড়ে ৫টায় বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ড. এম ওসমান ফারুক তার নিজ বাসভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন।

ওসমান ফারুক বলেন, সারাদেশব্যাপী মানুষ সরকারের একদলীয় প্রহসনের নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করেছে। ভোট কেন্দ্রে ভোটারদের অনুপস্থিতি ও কয়েকটি জায়গায় প্রার্থীদের নির্বাচন বর্জনের ঘোষণাই তার চূড়ান্ত বর্হিপ্রকাশ।

তিনি বলেন, দেশব্যাপী নির্বাচন বর্জনের মধ্যদিয়ে জনগণের বিজয় হয়েছে, গণতন্ত্রের বিজয় হয়েছে।

সরকারের উদ্দেশে তিনি বলেন, লজ্জা থাকলে অবিলম্বে একতরফা নির্বাচনের ফলাফল বাতিল করে সংলাপে বসুন। সংলাপের মাধ্যমে সবার অংশ গ্রহণের মাধ্যমে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ব্যবস্থা করুন।

তিনি আরো বলেন, সরকার একতরফাভাবে নির্বাচন করে ক্ষমতায় বসার স্বপ্ন দেখেছিলো। প্রশাসন ও দলীয় লোকদের মাধ্যমে যে প্রতারণার ফাঁদ পেতেছিলো তাদের সেই পরিকল্পনা চূরমার হয়েছে। একদলীয় এ নির্বাচনে ৩ থেকে ৫ শতাংশ ভোট পড়েছে বলেও বিএনপির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়।

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ