Home / নির্বাচন / নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা আট প্রার্থীর

নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা আট প্রার্থীর

নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন আটজন প্রার্থী। ভোট কারচুপি ও জালিয়াতির অভিযোগ এনে তাঁরা এই বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন।

তাঁরা হলেন ঢাকা-১৫ (কাফরুল) আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ এখলাস উদ্দিন মোল্লা (হাতি), নারায়ণগঞ্জ-১ (রূপগঞ্জ) আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী শওকত আলী (তালা), লক্ষ্মীপুর-৪ (রামগতি-কমলনগর) আসনের এ কে এম শরিফ উদ্দিন (ফুটবল) ও আজাদ উদ্দিন চৌধুরী (হরিণ), সিরাজগঞ্জ-৫ (বেলকুচি-চৌহালি) আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী আতাউর রহমান রতন (দোয়াত-কলম) এবং বরগুনা-২ (বামনা-বেতাগী-পাথরঘাটা) আসনের আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আবুল হোসেন শিকদার (মোরগ) ও শেরপুরের নকলা-নালিতাবাড়ি আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী বদিউজ্জামান বাদশা।

ঢাকা-১৫
ঢাকা-১৫(কাফরুল) আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী এখলাস উদ্দিন মোল্লা রোববার দুপুর ১২টার পর রাজধানীর আগারগাঁও নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ে গিয়ে সাংবাদিকদের অভিযোগ করেন, নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপি হচ্ছে। এ কারণে তিনি ভোট বর্জনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

নারায়ণগঞ্জ-১
এদিকে বেলা সোয়া একটার দিকে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে শওকত মার্কেটে নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে নির্বাচন বয়কটের ঘোষণা দেন নারায়ণগঞ্জ-১ (রূপগঞ্জ) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী শওকত আলী। তিনি জানান, ১০১টি কেন্দ্রের মধ্যে ৫০টির বেশি কেন্দ্র থেকে তাঁর এজেন্টদের বের করে দেওয়া হয়েছে। নৌকা-সমর্থকেরা জাল ভোট দিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেন তিনি। শওকত আলী রূপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি।

অপরদিকে, সকালে একই আসনের জাতীয় পার্টির প্রার্থী জয়নাল আবদিন চৌধুরী এজেন্টদের বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ করে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন। এছাড়া কেন্দ্র পরিদর্শনে গেলে নৌকা-সমর্থকেরা তাঁর সঙ্গে অসদাচরণ করেছেন বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

লক্ষ্মীপুর-৪
আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী শরিফ উদ্দিন প্রচুর কারচুপি ও ভোট জালিয়াতির অভিযোগ করে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি অভিযোগ করেন, ২৫টি কেন্দ্র থেকে তাঁর এজেন্টদের বের করে দেওয়া হয়েছে।

রামগতি
অন্যদিকে, রামগতি উপজেলা সদরে স্বতন্ত্র প্রার্থী আজাদ উদ্দিন চৌধুরী নির্বাচন বর্জন করার পর তাঁর সমর্থকদের নিয়ে উপজেলা সদরে বিক্ষোভ মিছিল করেন। মিছিল থেকে ‘এ নির্বাচন অবৈধ’, ‘মানি না মানব না’ বলে স্লোগান দেওয়া হয়। পরে র‌্যাব লাঠিপেটা করে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

সিরাজগঞ্জ-৫
বেলা একটার দিকে বেলকুচির সোহাগপুর পাইলট বালিকা উচ্চবিদ্যালয় চত্বরে সাংবাদিকদের ভোট বর্জনের কথা জানান সিরাজগঞ্জ-৫ (বেলকুচি-চৌহালি) আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী আতাউর রহমান রতন। তিনি জানান, নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপি হচ্ছে।

বরগুনা-২
এদিকে দুপুর ১২টায় নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন বরগুনা-২ (বামনা-বেতাগী-পাথরঘাটা) আসনের আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আবুল হোসেন শিকদার। তিনি অভিযোগ করেন, বেলা সাড়ে ১১টার মধ্যে পাথরঘাটার সবগুলো কেন্দ্র আওয়ামী লীগ প্রার্থী শওকত হাছানুর রহমানের সমর্থকেরা দখল করে নেন। একইভাবে বামনা উপজেলার সাতটি কেন্দ্র দখল করে প্রচুর জাল ভোট দেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

শেরপুর
শেরপুরের নকলা-নালিতাবাড়ি আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী বদিউজ্জামান বাদশাও দুপুর দেড়টার দিকে কারচুপি ও ভোট জালিয়াতির অভিযোগ এনে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানর ঘোষণা দিয়েছেন।

তবে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে নির্বাচন সুষ্ঠু হচ্ছে বলে দাবি করা হয়েছে।

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ