Home / জাতীয় / সারাদেশে ১৮ দলের ডাকা ৪৮ ঘণ্টার হরতাল চলছে

সারাদেশে ১৮ দলের ডাকা ৪৮ ঘণ্টার হরতাল চলছে

আগামী ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন (ভোট) ঠেকাতে শনিবার সকাল থেকে শুরু হয়েছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোটের ডাকা ৪৮ ঘণ্টার হরতাল কর্মসূচি। এটিই কেন্দ্রীয়ভাবে ১৮ দলের ডাকা নতুন বছরের প্রথম হরতাল। এর আগে বুধবার ঘোষিত অনির্দিষ্টকালের অবরোধের পাশাপাশি শনিবার সকাল ৬টা থেকে এ হরতাল চলবে সোমবার সকাল ৬টা পর্যন্ত। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে নিজ বাড়িতে অবরুদ্ধ করে রাখার প্রতিবাদে ও ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠেয় নির্বাচন প্রতিরোধে শুক্রবার সন্ধ্যায় দেশব্যাপী এ হরতাল কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

১৮ দলীয় জোটের পক্ষে হরতাল কর্মসূচি ঘোষণা করেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও সাবেক শিক্ষামন্ত্রী ড. ওসমান ফারুক। এর আগে বুধবার (১ জানুয়ারি) থেকে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য রাজপথ, রেলপথ ও নৌপথ অবরোধ কর্মসূচি ঘোষণা করে ১৮ দল। এনিয়ে ছয়বারের মতো অবরোধ কর্মসূচি দিল এই জোট।

শুক্রবার ড. ওসমান ফারুক তাঁর গুলশানের বাসভবনে হরতাল কর্মসূচি ঘোষণা সংক্রান্ত সংবাদ সম্মেলনে জোটভুক্ত সব দলের নেতাকর্মীদের পাশাপাশি সর্বস্তরের মানুষের প্রতি হরতাল কর্মসূচি সফল করার আহ্বান জানান। ওসমান ফারুক বলেন, গণদাবিকে উপেক্ষা করে সরকার একতরফা নির্বাচন করতে যাচ্ছে। যে নির্বাচনে বিশ্বের কোনো দেশেরই সমর্থন নেই। শুধুমাত্র একজন ব্যক্তির ক্ষমতার মোহকে কেন্দ্র করে সরকার এই নির্বাচন করতে যাচ্ছে।

দেশের মানুষ ৫ জানুয়ারির নির্বাচন প্রতিহত করবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আপনারা ৫ জানুয়ারির নির্বাচনী প্রহসনকে না বলুন ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার আন্দোলনকে হ্যাঁ বলুন। জনগণের আন্দোলন কখনো বৃথা যাবে না, তাদের বিজয় সুনিশ্চিত। এসময় তিনি বলেন, ১৮ দলের অনির্দিষ্টকালের অবরোধ কর্মসূচি চলমান রয়েছে। এর পাশাপাশি একতরফা নির্বাচন বাতিল ও খালেদা জিয়াকে তার বাসায় অবরুদ্ধ করে রাখার প্রতিবাদে সারাদেশে ৪৮ ঘণ্টার শান্তিপূর্ণ হরতাল চলবে।

এদিকে, কেন্দ্রীয়ভাবে হরতাল কর্মসূচি ঘোষণার পর শুক্রবার রাতে দেশের বিভিন্ন স্থানে ভোট কেন্দ্রে আগুন দেয় ১৮ দলীয় জোটের কর্মী-সমর্থকরা। পাশাপাশি বাসে আগুন ও ককটেল বিস্ফোরণও ঘটানো হয় বিভিন্ন জেলায়।

এর আগে একই দাবিতে ১৮ দলীয় জোট প্রথম দফায় ২৬ থেকে ২৮ নভেম্বর পর্যন্ত ৭১ ঘণ্টার অবরোধ কর্মসূচি পালন করে। এরপর দ্বিতীয় দফায় ৩০ নভেম্বর থেকে ৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত ১৩১ ঘণ্টা, তৃতীয় দফায় ১৪৪ ঘণ্টার অবরোধ পালিত হয় ৭ থেকে ১২ ডিসেম্বর পর্যন্ত, চতুর্থ দফায় ১৭ থেকে ১৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত ৭২ ঘণ্টা এবং পঞ্চম দফায় ৮৩ ঘণ্টার অবরোধ পালিত হয় ২১ থেকে ২৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

 

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ