Home / আন্তর্জাতিক / খুঁটিনাটির হিসাব রাখে আল-কায়দা

খুঁটিনাটির হিসাব রাখে আল-কায়দা

al qayeda
কায়রো: সামান্য কয়েক টাকা মূল্যের কেক থেকে শুরু করে রকেট লঞ্চার পর্যন্ত যা কিছুই কেনা হোক না কেন সংগঠনের কাজে, তার সব কিছুরই পাই-পয়সার হিসাব রাখে আল-কায়দা৷ সম্প্রতি উত্তর-পশ্চিম আফ্রিকার মালিতে এই জঙ্গি সংগঠনের এক পরিত্যক্ত ঘাঁটিতে অভিযান চালিয়ে পাওয়া গিয়েছে হিসাবনিকাশের কাগজপত্র৷

আট বছর আগে স্বনামখ্যাত ঔপন্যাসিক ফ্রেডেরিক ফরসাইথের ‘দ্য আফগান’ উপন্যাসটি প্রকাশিত হয়৷ সেখানে অনেকটা এমনই ইঙ্গিত দিয়েছিলেন ঔপন্যাসিক৷ গল্পে তেওফিক আল-কুর নামে এক মিশরীয় জঙ্গির উল্লেখ ছিল৷ কাল্পনিক এই চরিত্রকে দেখানো হয়েছিল আয়মান আল-জাওয়াহিরির ঘনিষ্ঠ এবং সংগঠনের কোষাধ্যক্ষ হিসেবে৷ অপঘাতে মৃত্যুর পর আল-কুরের ল্যাপটপ থেকে মার্কিন গোয়েন্দারা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একাধিক তথ্যের সন্ধান পেয়েছিলেন৷

কে জানত এই ইঙ্গিতের বাস্তব ভিত্তিও আছে! আপাতত উত্তর-পশ্চিম আফ্রিকা ক্রমশ আল-কায়দার শক্ত ঘাঁটিতে পরিণত হচ্ছে৷ আল-কায়দা ইন ইসলামিক মাগরেব (একিউআইএম) এখন লিবিয়া, আলজিরিয়া, ও আফ্রিকার অন্যান্য দেশগুলির আল-কায়দা সংগঠনের সদস্যদের আশ্রয়স্থল৷ এখানেই একাধিক দোকান থেকে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনতে গেলে, দোকানির কাছ থেকে বিল চেয়ে নিতে শুরু করেছেন সংগঠনের ছোট-বড় সব সদস্যই৷

উদাহরণ স্বরূপ বলা যায়, একটা কেক ৬০ সেন্ট, বার সাবানের জন্য ১.৮ মার্কিন ডলার, এমনকি ঘর পরিষ্কারের ঝাড়ু কিনলেও তার হিসাব রাখতে হচ্ছে কর্মীদের৷ বন্দুক-গুলি বা বিস্ফোরকের হিসাব তো রয়েইছে৷ এর কারণ দ্বিবিধ৷ প্রথমত, যে ভাবে লুঠপাট বা তোলাবাজি বা দান থেকে দলে অর্থের আমদানি হয়, তাতে এমন কড়াকড়ি না করলে চুরি ঠেকানো যাবে না৷

দ্বিতীয়ত, আল-কায়দা সদস্যরা প্রতিটা খুঁটিনাটির হিসাবে রাখেন এমন তথ্য ছড়িয়ে পড়ায় জনমানসে তাদের একটা স্বচ্ছ ভাবমূর্তি তৈরি হতে সুবিধা হয়৷ সুবিধা হয়েওছে৷ মালির টিম্বাকটু এখন এই জঙ্গিদের শক্ত ঘাঁটি৷ এখানে বেশ কিছু ব্যবসায়ীর মনেই আল-কায়দা সদস্যদের ‘সততা’ নিয়ে কোনো প্রশ্ন নেই৷ তবে পরিত্যক্ত ঘাঁটিতে তল্লাশি চালিয়ে মার্কিন গোয়েন্দারা জেনেছেন প্রতিদিন কোন খাতে কত ব্যয় হয়৷ – সংবাদসংস্থা

আজকের নিউজ আপনাদের জন্য নতুন রুপে ফিরে এসেছে। সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। - আজকের নিউজ